সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: মার্চ থেকে এপ্রিল। গত এক মাসে নতুন ৮০টি অতিথি পেয়েছে আলিপুর চিড়িয়াখানা। এমনটাই জানিয়েছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। গত বছরের শেষের দিকে একসঙ্গে প্রায় ১৩টি নতুন জীবজন্তু এনে তাক লাগিয়েছিল আলিপুর চিড়িয়াখানা। এবার মহানগরের পশুশালাতেই জন্ম নিয়েছে পশু, পাখি, সরীসৃপের শাবকগুলি।

পশুদের তালিকায় চিড়িয়াখানায় জন্ম হয়েছে মাউস ডিয়ার, জেব্রার। ম্যকাও, লুটিনো প্যরাকিড শিশুর জন্ম দিয়েছে। সরীসৃপের তালিকায় রয়েছে মনিটর লিজার্ড, জলঢোঁরা, ইয়েলো স্নেক। মার্চের প্রথম সপ্তাহেই মাউস ডিয়ারের একটি জোড়া একটি শিশুর জন্ম দেয়। অধিকর্তা আশিসকুমার সামন্ত বলেন, “এটি খুব লাজুক প্রজাতির প্রাণী। গত বছর নতুন পশুদের তালিকায় ছিল মাউস ডিয়ার। মোট ৬টি মাউস ডিয়ার আনা হয়েছিল। এদের জড়ায় তিনটি আলাদা খাঁচায় রাখা হয়েছিল। একটি ডি-হাইড্রেশনে মারা গিয়েছিল। বাকি দুই জোড়ার মধ্যে একটি জন্ম দিয়েছে এই শিশুটির।” সব মিলিয়ে মাউস ডিয়ারের সংখ্যা এখন ৬টি। মে মাসে সদ্যজাত জেব্রার মৃত্যুর পরে এপ্রিলের ১৪ তারিখে আবারও একটি জেব্রার জন্ম হয়েছে চিড়িয়াখানায়। জেব্রার সংখ্যা এখন ৯টি।

এপ্রিল মাসে জন্ম নিয়েছে ম্যকাওয়ের তিনটি বাচ্চা। চিড়িয়াখানায় হলুদ ও নীল ম্যকাও মিলিয়ে মোট ১২ টি পাখি ছিল। নতুন তিন শিশুর জন্মের ফলে চিড়িয়াখানায় ম্যকাওয়ের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫টি। অধিকর্তা বলেন, “শিশুগুলিকে আড়াই ফুট লম্বা দেড় ফুট চওড়া সিমেন্টের জায়গা তৈরি করে রাখা হয়েছে।” মা নিজেই খাইয়ে দিয়েছে নিজের শিশুদের খাইয়ে দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন আশিসকুমার সামন্ত। পাশাপাশি চার বছর পর লুটিনো প্যারাকিড পাখি তিনটি শিশুর জন্ম দিয়েছে। ১৩ টি মনিটর লিজার্ড, ইয়েলো স্নেকের সঙ্গে ৪৫ টি জলঢোঁড়া সাপ জন্ম নিয়েছে সরীসৃপ ঘরে।