নয়াদিল্লি: লকডাউন ৩.০ চালু হতেই একাধিক রাজ্যে খুলছে মদের দোকান। আর তার সামনে লাইন দিয়েছে কাতারে কাতারে মানুষ। সুরাপ্রেমীদের এত ঔৎসুকতা দেখে ফন্দি আঁটছে জোমাটো। রয়টার্সের পক্ষ থেকে জানা যাচ্ছে, অনলাইন ফুড ডেলিভারি সংস্থা জোমাটো মদ সরবরাহের লক্ষ্যে কাজ করছে।

করোনার জেরে নানান রেস্তরাঁ ও খাবারের দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় জোমাটো ইতিমধ্যেই তাঁদের ডেলিভারি প্রোডাক্ট বদলে ফেলেছে। মুদি সামগ্রী অর্ডার করা যাচ্ছে জোমাটো থেকে।

২৫ শে মার্চ থেকে দেশব্যাপী লকডাউন চালু হয়ে যায়। ওই সময় থেকেই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল মদের দোকানও। এরপর লকডাউন ৩.০ তে এই সপ্তাহে পুনরায় মদের দোকান খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। দোকান খুলতেই একাধিক রাজ্যে দেখা গিয়েছে অচেনা এক ছবি। শত শত মানুষ কিছু শহরে কয়েকটি আউটলেটের বাইরে ভিড় জমান। সামাজিক দূরত্ব শিকেয় ওঠে। ভিড় হঠাতে হস্তক্ষেপ করতে হয় পুলিশকেও।

বিপুল জনতার ভিড় ঠেকাতে দিল্লি সরকার খুচরো মদের দামে ৭০ শতাংশ স্পেশাল করোনা ফি বসায়। মুম্বইতে আবার মদের দোকান খোলার দু’দিনের মধ্যেই তা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

দেশে বর্তমানে মদ সরবরাহের জন্য বর্তমানে কোনও আইনী অনুমতি নেই। তবে ইন্টারন্যাশনাল স্পিরিটস অ্যান্ড ওয়াইনস অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া জোমাটো ও অন্য কোম্পানিদের সঙ্গে মিলে একযোগে এ ব্যাপারে সরকারকে রাজি করাতে তোড়জোড় শুরু করেছে বলে জানা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে সারা দেশে বিভিন্ন রাজ্যে মদ্যপানের জন্য বয়সের মাত্রা ১৮-এর ওপরে করা রয়েছে। একটি অপ্রকাশিত নথির ভিত্তিতে রয়টার্সের তরফে জানা যাচ্ছে, কোভিড -১৯ দ্বারা তুলনামূলকভাবে কম ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাতেই মদ সরবরাহ করারা টার্গেট নিয়েছে জোমাটো।