নয়াদিল্লি: এবার নয়া বার্তা অনলাইন ফুড ডেলিভারি সংস্থা জোমাটোর৷ সংস্থার ডেলিভারি বয়রা জানিয়ে দিয়েছে তাদের দিয়ে গোমাংস বা শূকরের মাংসের কোনও খাবার পাঠানো যাবে না, কারণ তা তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগকে আঘাত করছে৷ সংস্থার কর্তৃপক্ষ যদি এই দাবি মেনে না নেয়, তবে সোমবার থেকে কাজ থেকে বিরতি নেবেন তাঁরা৷

এই ধরণের ফরমানে সংস্থা নয়া সংকটে৷ ডেলিভারি বয়রা জানিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে যাঁরা হিন্দু-তাঁরা গোমাংস এবং মুসলিম সম্প্রদায়ের কর্মীরা শূকরের মাংস ডেলিভারি দেবেন না৷ কারণ এতে তাঁদের ধর্মহানির আশংকা থাকছে৷ ঈদের দিন এই নিয়ম চালু করতে হবে বলে দাবি তাঁদের৷

আরও পড়ুন : সংস্কৃতের সাহায্যেই তৈরি হবে নাসার কথা বলা কম্পিউটার : কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

কর্মীদের ধর্মীয় ভাবাবেগ নিয়ে খেলছে জোমাটো, এমনই অভিযোগ ডেলিভারি বয়দের৷ এরই বিরুদ্ধে কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছেন তাঁরা৷ সোমবার থেকেই স্ট্রাইকে যাচ্ছেন তাঁরা বলে জানানো হয়েছে৷ এই প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন সংস্থার হিন্দু ও মুসলিম ডেলিভারি বয়রা৷ তবে কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এখনও কোনও তথ্য বা প্রতিক্রিয়া এই বিষয়ে পাওয়া যায়নি৷

জোমাটোর খাবার সরবরাহ কর্মী মহসিন আখতার জানান, বেশ কয়েকটি মুসলিম রেস্তোঁরাকে এই অনলাইন সংস্থা সংযুক্ত করেছে, যারা গোমাংস বিক্রি করছে৷ সেই খাবার সংগ্রহ করতে পাঠানো হচ্ছে হিন্দু ডেলিভারি বয়দের৷ আবার বলা হচ্ছে মুসলিম ডেলিভারি বয়দের শূকরের মাংসের খাবার সংগ্রহ করতে হবে৷ এই ধরণের মনোভাব ও যথেচ্ছাচার মেনে নেওয়া যায়না৷ এর প্রতিবাদ জানাতেই সোমবার থেকে আন্দোলনে নামা হচ্ছে৷

আরও এক কর্মীর দাবি ধর্মীয় ভাবাবেগের সঙ্গে কোনওভাবেই আপোষ করা যাবে না৷ তার জন্য চাকরি যায় যাক৷ কর্মীদের এই আন্দোলনকে সমর্থন করেছেন রাজ্যের মন্ত্রী ও হাওড়ার তৃণমূলের বিধায়ক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তাঁর মতে কর্মী এই দাবি একেবারেই সঠিক৷ এগুলো সংস্থার অন্যায় ভাবে চাপিয়ে দেওয়া দাবি৷ প্রত্যেকের নিজের নিজের ধর্মীয় রীতি পালনের ও ভাবাবেগ বজায় রাখার অধিকার রয়েছে৷

আরও পড়ুন : কাশ্মীর ইস্যুতে ভুল তথ্যে কড়া শাস্তি, সংবাদমাধ্যমকে সতর্কতা কেন্দ্রের

উল্লেখ্য, সম্প্রতি জোমাটোর অনলাইন ফুড ডেলিভারি অ্যাপের মাধ্যমে খাবার অর্ডার করেন মধ্যপ্রদেশের এক ব্যক্তি। ওই ব্যক্তির নাম অমিত শুক্লা। অর্ডার মাফিক খবার যখন দুয়ারে প্রস্তুত সেই মুহূর্তে ওই ব্যক্তির নজরে আসে ডেলিভারি বয় ধর্মে মুসলিম। তৎক্ষণাৎ নিজের অর্ডারটি বতিল করেন অমিত শুক্লা। এই ঘটনায় স্তম্ভিত হয়ে যায় নানা মহল।

শুধু তাই নয়, মুসলিম ডেলিভারি বয় পাঠানো হবে কেন জানতে চেয়ে জোমাটোর কাস্টোমার সার্ভিসে মেসেজ করেন অমিত। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, অহিন্দুর হাত থেকে খাবার গ্রহণ করা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়! তবে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে জোমাটোর জবাবে খুশি অনেকেই। চরম হিন্দুত্ববাদী ও কুসংস্কারাচ্ছন্ন ওই ব্যক্তিকে জোমাটো সাফ জানিয়ে দেয়, ‘খাবারের কোনও ধর্ম হয় না, খাবার নিজেই একটি ধর্ম’।