নয়াদিল্লি: বাংলাদেশে জঙ্গি হামলায় নাম জড়ানোর পর থেকেই ভারত ছাড়া ইসলামিক প্রচারক জাকির নায়েক। তাঁর ধর্ম প্রচারও নিষিদ্ধ হয়েছে বিভিন্ন টেলিভিশনে। তাঁর ভারতে ফেরার রাস্তা কার্যত বন্ধ। আর এবার সরাসরি মোদী ও অমিত শাহের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ আনলেন তিনি।

সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে একটি ভিডিও, আর সেখানেই এই চাঞ্চল্যকর দাবি করেছেন জাকির নায়েক। ‘টাইমস নাউ’তে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, ওই ভিডিওতে জাকির নায়েক বলেছেন, ‘‌প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের দূত আমার সঙ্গে দেখা করেছিলেন।’‌

তাঁর দাবি, সরকার তাঁকে এক বিশেষ অফার দিয়েছিল। তাঁকে বলা হয়েছিল, কাশ্মীর নিয়ে সরকারের পদক্ষেপকে সমর্থন করতে। তাহলে জাকিরের বিরুদ্ধে সব মামলা তুলে নেওয়া হবে। তিনি ভারতে ফিরতে পারবেন। কিন্তু জাকির নায়েক এই প্রস্তাবে রাজি হননি।

একইসঙ্গে জাকির নায়েক জানান, সরকার চেয়েছিল তাঁর নানা যোগাযোগকে কাজে লাগিয়ে মুসলিম দেশগুলির সঙ্গে সম্পর্ক ভাল করতে। জাকির নায়েক বলেন, ‘ভারত সরকার তাদের এক প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকে বসতে বলেছিল। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসের চতুর্থ সপ্তাহে সেই প্রতিনিধি আমার সঙ্গে দেখা করতে আসেন। তিনি বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করার পরে সোজা আপনার কাছে এসেছি।’

তাঁর কথায়, ‘‌ওই প্রতিনিধি আমাকে বলেন, মোদী ও অমিত শাহের নির্দেশে আমি আপনার সঙ্গে দেখা করতে এসেছি। আপনি যাতে নিরাপদে ভারতে ফিরতে পারেন, সেজন্য তাঁরা ব্যবস্থা করবেন। বিনিময়ে তাঁরা আপনার সাহায্যে মুসলিম দেশগুলির সঙ্গে ভাল সম্পর্ক গড়ে তুলতে চান।’‌

এই প্রস্তাব শুনে তিনি প্রথমে অবাক হয়ে গিয়েছিলেন। কারণ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গত লোকসভা ভোটের আগে এক ভাষণে দু’মিনিটে তাঁর নাম উল্লেখ করেছিলেন ন’বার। তাঁর দাবি, মোদীর প্রতিনিধির সঙ্গে তিনি কয়েক ঘণ্টা কথা বলেছিলেন। তাঁকে বলা হয়েছিল, সংবিধানের ৩৭০ ধারা রদ করার সিদ্ধান্তকে সমর্থন করুন। এই ধারা অসাংবিধানিক বলে মনে হওয়ায় সমর্থন করেননি বলে জানিয়েছেন জাকির নায়েক।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ