বহরমপুর: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৌজন্যে জয় শ্রী রাম এখন গালাগালি হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই বিষয়টি নিয়ে মজা করতে গিয়েই ঘটল বিপত্তি। জয় শ্রী রাম স্লোগান দেওয়ার অপরাধে এক নাবালক সহ তিনজনকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল দুই তৃণমূল কর্মীর বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদ জেলার বহরমপুর থানার অন্তর্গত গোয়ালজাল ফেরিঘাট এলাকায়। খুব স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনার জেরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সমগ্র এলাকায়।

আরও পড়ুন- ধর্মের কারণেই সন্তানদের ক্রিকেট শেখাতে আগ্রহী নন আফ্রিদি

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রানা স্বর্ণকার এবং জয় হালদার নামে দুই যুবক তাঁদের এক বন্ধুর দাদার বিয়েতে গিয়েছিলেন। সকলের সঙ্গে রাতে খেতে বসে তাঁরা ইয়ারকির ছলে ‘জয় শ্রী রাম’ বলে চিত্কার করে। সেই সময় সেখানে উপস্থিত তৃণমূলের সক্রিয় কর্মী হিসেবে পরিচিত নিত্য এবং জয়ন্ত নামে দুই ব্যক্তি তাদের বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ। রানা স্বর্ণকারের চোট তেমন গুরুতর না হলেও ঘটনায় আহত জয় হালদারকে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিত্সার জন্য ভরতি করা হয়।

আরও পড়ুন- আমরাও প্রভু শ্রীরামের পুজো করি: অভিষেক

এই ঘটনায় রানা এবং জয় ছাড়া আরও এক নাবালকের উপরেও চড়াও হয়েছিল নিত্য এবং জয়ন্ত। যদিও তাকে কেবল বাকাবকি করেছিল বলে জানিয়েছে সেই নাবালক। বুধবার রাতের এই ঘটনার জেরে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোয়ালজান রিফিউজি ফেরিঘাট সংলগ্ন এলাকা। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ দেখান হয় ফেরিঘাট চত্বরে। পুলিশ এসে কোনোক্রমে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

খুব স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনার সঙ্গে লেগে গিয়েছে রাজনীতির রঙ। এই বিষয়ে মুর্শিদাবাদ দক্ষিণের সভাপতি গৌরি শঙ্কর ঘোষ বলেন, ‘এই ধরনের ঘটনা সম্পর্কে আমার কিছুই বলার নেই। এটাতো কোনো রাজনৈতিক দলের শ্লোগান নয়। কেউ যদি ভগবানের নাম করে কিছু বলে তাদের কি সমস্যা। এই ধরনের মানুষের কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত।’ কংগ্রেসের মুখপাত্র জয়ন্ত দাস এই ধরণের ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। এই ঘটনা সম্পর্কে কিছু জানা নেই বলে দাবি করেছেন তৃণমূলের মুর্শিদাবাদ জেলা মুখপাত্র অশোক দাস

কয়েকদিন আগে নির্বাচনী প্রচারে চন্দ্রকোনার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় মুখ্যমন্ত্রীর কনভয়ের সামনে ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান দেন কিছু সাধারণ গ্রামবাসী৷ আর তাতেই চটে গিয়ে গিয়ে কনভয় থামিয়ে রাস্তায় নেমে এসে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আমাকে গালাগাল দিচ্ছে! সাহস থাকলে সামনে আয়৷ পালাচ্ছিস কেন? সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর এরপর ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান দেওয়ার ‘অপরাধে’ তিনজনকে আটক করে পুলিশ৷ পুরো ঘটনার কড়া সমালোচনা করা হয় বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পক্ষ থেকে৷