নয়াদিল্লি: উৎসবের মরশুম হোক কিংবা বিভিন্ন অফারের সময়। বিক্রি বাড়াতে বিভিন্ন সংস্থা নিয়ে আসে ক্যাশব্যাক, ডিসকাউন্টের সম্ভার৷ অনলাইন থেকে অফলাইন, সব জায়গাতেই থাকে এই রমরমা৷ বিশেষ করে উৎসবের দিনগুলিতে স্বাভাবিকভাবেই বেড়ে যায় শপিংয়ের মাত্রা৷ আর, সেই সুযোগকে হাতছাড়া করতে একেবারেই নারাজ ছোট বড় সংস্থাগুলি৷ অতিরিক্ত মুনাফা লুটতে দেওয়া হয় এই ক্যাশব্যাক, ডিসকাউন্ট এবং আকর্ষণীয় অফারের টোপ৷

আর, ক্যাশব্যাক কিংবা ডিসকাউন্ট শব্দগুলোই গ্রাহক আকর্ষণের জন্য যথেষ্ট৷ সকলেই চান কেনাকাটি চলুক স্বাভাবিকভাবে৷ সঙ্গে থাকুক অতিরিক্ত কিছু পাওয়া৷ আর, এই ক্যাশব্যাকর মাধ্যমেই শপিংয়ের উপর বাঁচাতে পারেন বেশ কিছু টাকা৷

কিন্ত, জানেন কী ক্যাশব্যাকের পরিমাণ নির্দিষ্ট মাত্রা ছাড়ালে দিতে হতে পারে ইনকাম ট্যাক্স৷ অনেকেই হয়ত বিষয় নিয়ে অবগত নন৷ কিন্তু, ক্যাশব্যাকের মাধ্যমে পাওয়া লাভের অংশে কামড় বসাতে পারে আইটি ডিপার্টমেন্ট৷

ইনকাম ট্যাক্স অ্যাক্টের ৫৬(২)(x) ধারা জানাচ্ছে, ক্যাশব্যাকটি সরকারি অনুমতি ছাড়া গ্রহণ করা হলে দিতে হবে ট্যাক্স৷ ক্যাশব্যাকের পরিমাণ যদি ৫০,০০০ টাকার বেশি হয় সেক্ষেত্রে ধার্য থাকবে কর৷ সুতরাং, চলতি অর্থবর্ষে আপনি যদি ক্রেডিট কার্ড, ই-ওয়ালেটের মাধ্যমে ৫০,০০০ টাকার বেশি অতিরিক্ত লাভ করে থাকেন৷ তাহলে আপনার লভ্যাংশে থাবা বসাবে ইনকাম ট্যাক্স৷

তবে, ছোট অ্যামাউন্টের ক্যাশব্যাকর উপরে থাকছে না এমন কোন নিয়ম৷ তাই, জমিয়ে শপিং করুন৷ আর ক্যাশব্যাক পান৷ তবে, মাথায় রাখুন কয়েকটি সাধারণ বিষয়৷ যেগুলি আপনাকে বাঁচাতে পারে ইনকাম ট্যাক্সের কবল থেকে৷ দাশেরা থেকে দিওয়ালি, স্বাধীনতা দিবস থেকে দুর্গা পুজো। উৎসবের দিনগুলোতে লাগাতার অফার, ক্যাশব্যাকের সম্ভার নিয়ে হাজির হয়েছে ই-কমার্স সংস্থাগুলি৷