সঞ্জয় কর্মকার, বর্ধমান: বিয়ে না হওয়ায় আত্মঘাতী মৃৎশিল্পী। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মৃত যুবকের নাম শম্ভু পাল (৩১)। তিনি বর্ধমান থানা এলাকার বোড়নীলপুর কমলাদিঘীর পাড়ের বাসিন্দা ছিলেন। মৃতের ভাই বাপি পাল জানিয়েছেন, তাঁর দাদার বাঁ চোখ সামান্য ছোট ছিল। এই কারণে বেশ কয়েক বছর ধরে শম্ভু পালের বিয়ের উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা হচ্ছিল না।

চোখ ছোট হওয়ায় পাত্রী পক্ষের বারবার অপছন্দের কারণ হয়ে ওঠায় তাঁর দাদা মানসিক হতাশায় ভুগছিলেন বলে জানিয়েছেন বাপি পাল। এমনকি এরই মধ্যে ভাই বাপিরও বিয়ে হয়ে যাওয়ায় হতাশার পরিমাণ আর বেড়ে গিয়েছিল বলে জানিয়েছেন ওই এলাকার বাসিন্দা সুব্রত বিশ্বাস। বাপি বাবু জানিয়েছেন, দিন তিনেক আগে কালনায় তাঁর দাদার বিয়ের জন্য যোগাযোগ হয়। কিন্তু এক্ষেত্রেও একটি চোখ ছোট হওয়ায় পাত্রীপক্ষ বিয়েতে সম্মত হয়নি। এই কারণেই হতাশা আরও বেড়ে যায়। মঙ্গলবার রাতে শোয়ার পর বুধবার সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় পেরিয়ে গেলেও না ওঠায় পরিবারের অন্যান্যরা দরজা ভেঙে ঘড়ে ঢুকে শম্ভুর ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান। তাকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।