নয়াদিল্লি: করোনা আবহাওয়ার মধ্যে শুরু হতে চলেছে রেল। যদিও ইতিমধ্যে ভিন রাজ্য থেকে শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনার জন্য রেলের তরফ থেকে বিশেষ কিছু ট্রেন চালানো হচ্ছে। কিন্তু দ্রুত শুরু হতে চলেছে যাত্রীবাহী রেল পরিষেবা। যার ফলে ভিন রাজ্যতে আটকে পড়া মানুষেরাও খুব সহজে নিজেদের বাড়ি ফিরতে পারবেন।

তবে এই করোনা আবহাওয়ার মধ্যে রেলের তরফ থেকে জারি করা হয়েছে কিছু নিয়ম। সেই সকল নিয়ম না মানলে স্টেশনে পর্যন্ত ঢুকতে দেওয়া হবে না বলেও জানা গিয়েছে।

সকল যাত্রীদের প্রায় নিজেদের যাত্রার সময়সীমার ৯০ মিনিট আগে স্টেশনে উপস্থিত হতে হবে। তবে কেবলমাত্র যাত্রীরাই নিজেদের সঠিক টিকিট নিয়ে স্টেশনে ঢুকতে পারবে। যাত্রীদের সঙ্গে অন্য কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। এছাড়াও সকল যাত্রীদের ট্রেনে ওঠার আগে বাধ্যতামূলক ভাবে স্ক্রিনিং করানো হবে। এছাড়াও যাত্রীদের ফেস মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। সঙ্গে থার্মাল স্ক্রিনিং ও করা হবে তাদের। সকল যাত্রীদের সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে স্টেশনে।এছাড়াও গন্তব্যে পৌঁছানর পরে সকল যাত্রীদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সকল নিয়ম বিধি মানতে হবে।

সকল যাত্রীদের ফোনে আরোগ্য সেতু অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে বাধ্যতামূলক ভাবে। এছাড়াও সকল স্টেশনে জানানো হয়েছে যাতে সব জায়গাতে ঢোকার এবং বেরনোর আলাদা জায়গা থাকে যাতে কেউ মাস্ক না পরে স্টেশনে ঢুকতে না পারে। পাশাপাশি জোনাল স্টেশনগুলিতে যাতে সকলে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলে সেই বিষয়ে খেয়াল রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ এই করোনা আবহাওয়ার মধ্যে কোন রকম ঝুঁকি নিতে রাজি নয় রেল কতৃপক্ষ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.