মানুষের দেহ খুব সেনসেটিভ৷ যখন তখন যত্রতত্র হাত দেওয়া সমীচিন নয়৷ বাড়ির বড়োরা একথা হামেশাই বলে থাকেন৷ কিন্তু এবার এই একই কথা বললেন ডাক্তাররা৷ জানালেন, দেহের কয়েকটি অংশ কখনই যখন তখন হাত দিয়ে স্পর্শ করা উচিত নয়৷

মুখ
ব্রণর সমস্যা থাকলে কখনওই মুখ হাত দিয়ে ছোঁয়া উচিত নয়৷ এমনকী মুখ ধোয়ার আগেও সতর্কতা অবলম্বন করা জরুরি৷ মুখ ধোয়ার আগে ভালো করে হাত ধুয়ে নিন৷ কারণ হাত থেকেই বেশিরভাগ সময় জীবাণু ছড়িয়ে পড়ে৷ তা থেকে রোগ হওয়া অসম্ভব নয়৷

চোখ
সারাদিনে বেশ কয়েকবার আমাদের চোখ চুলকোয়৷ কাজের মধ্যে অজান্তেই আমরা হাত দিয়ে চোখ চুলকে নিই৷ ডাক্তাররা বলছেন এখান থেকে ছড়িয়ে পড়তে পারে জীবাণু৷ দেহের সবচেয়ে সেনসেটিভ অংশ চোখ৷ তাই এই অংশটিকে সাবধানে রক্ষা করা উচিত৷ বেশিরভাগ সময়ে চোখের ইনফেকশন হাত থেকেই ছড়িয়ে পড়ে৷

নখের নিচের ত্বক
নখের নিচের ত্বকের চামড়া হয় খুব নরম৷ নখের নিচে সবচেয়ে বেশি নোংরা জমে৷ তাই নিয়মিত নখ পরিষ্কার করা উচিত৷ নাহলে সেখান থেকে জীবাণু ছড়িয়ে পড়তে পারে নিচের চামড়ায়৷

কান
প্রায়শই মনের খেয়ালে আমরা কানে আঙুল ঢুকিয়ে কান পরিষ্কার করি৷ আদতে কিন্তু কান তাতে নোংরাই হয়৷ হাতে যা জীবাণু লেগে থাকে, তা সরাসরি কানে চলে যায়৷ তাই যতটা সম্ভব কান থেকে হাত দূরে রাখা উচিত৷

মুখ
হাত নোংরা তো বটেই, হাত পরিষ্কার থাকলেও তা কখনই মুখের ভিতরে দেওয়া উচিত নয়৷ চিকিৎসকদের মত তেমনই৷ কারণ মুখের সাহায্যেই দেহের অভ্যন্তরে সবকিছু প্রবেশ করে৷ ফলে রোগের সম্ভবনা অমূলক নয়৷

নাক
হাত নয়৷ নাক পরিষ্কার করার জন্য ব্যবহার করুন স্যানেটাইজড রুমাল৷ গবেষণা বলছে যারা নাক পরিষ্কার করার জন্য হাত ব্যবহার করে, তারা রোগাক্রান্ত হয় বেশি৷ তুলনায় যারা একটু সাবধানতা অবলম্বন করে, রুমাল ব্যবহার করে, তারা অনেক বেশি সুস্থ থাকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।