নয়াদিল্লি: বিশ্বের সর্বোচ্চ যুদ্ধক্ষেত্রের নাম সিয়াচেন। সারা বছর সেখানে মৃত্যু ভয়কে জয় করে লড়াই করে চলেছে ভারতীয় সেনা। সেই সিয়াচেনের বরফ স্পর্শ করে দেখতে কার না ইচ্ছে করে! কিন্তু অনেকই হয়ত জানেন না শুধু সেনাবাহিনী নয়, সাধারণ নাগরিকও চাইলে যেতে পারেন সিয়াচেনের হিমবাহে।

প্রত্যেক বছর ভারতীয় সেনা কিছু মানুষকে সিয়াচেনে ট্রেক করার সুযোগ করে দেন। ২০০৭ থেকে শুরু হয়েছে এই উদ্যোগ। আর্মি অ্যাডভেঞ্চার উইং-এর তৎপরতায় হয় এই ট্রেকিং। প্রতি বচর ৩০-৪০ জন সাধারণ মানুষকে বেছে নেওয়া হয়। ১৩ দিন লাগে ট্রেকিং সম্পূর্ণ হতে। তবে সম্পূর্ণ প্রোগ্রাম শেষ হতে মাসখানেক সময় লাগে। প্রথমে ওই চরম আবহাওয়ায় অভ্যস্ত করা হয়। এরপর হয় মেডিক্যাল চেক-আপ। এরপর সিয়াচেন বেস ক্যাম্প থেকে কুমার ক্যাম্পের দিকে নিয়ে যাওয়া হয়।

যারা এই ট্রেকিং-এ যেতে উৎসাহী তাদের নর্দার্ন হাই কমান্ডের হেডকোয়ার্টারে একটি আবেদনপত্র পাঠাতে হয়। প্রথমে আবেদন করলে প্রথমে সুযোগ দেওয়া হয়। আবেদনকারীকে মোটামুটি ৪৫ বছরের নিতে হতে হয়। আর অবশ্যই আবেদনকারীদের অতিউচ্চতায় ও চরম শীতল আবহাওয়ায় যাওয়ার মত শারীরিক ফিটনেস থাকতে হবে। প্রতি বছরই বহু রাষ্ট্রীয় মিলিটারি স্কুলের ক্যাডেট, মিলিটারি কলেজের ছাত্র কিংবা সাংবাদিকরা এই ট্রেকিং-এ অংশ নিয়ে থাকে। এটাই বিশ্বের উচ্চতম ও শীতলতম যুদ্ধক্ষেত্র চাক্ষুষ করার একমাত্র সুযোগ।