সুভাষ বৈদ্য, কলকাতা: প্রথমবার ডুরান্ড কাপ অনুষ্ঠিত হতে চলেছে রাজ্যে। শুক্রবার উদ্বোধনী ম্যাচ হবে সল্টলেক যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে। নিরাপত্তায় থাকছে দুই হাজার পুলিশ। মোবাইল আর মানিব্যাগটা ছাড়া অন্য কিছু নিয়ে স্টেডিয়ামের ভিতরে ঢোকা যাবে না বলে জানান পুলিশ।

বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের ডিসি হেড কোয়াটার কুনাল আগরওয়াল বৃহস্পতিবার একটি সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান, ২ অগস্ট শুক্রবার সল্টলেক স্টেডিয়ামে ডুরান্ড কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে প্রায় ৫০ হাজার দর্শক হবে, এমনটাই ধরে নিয়ে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। ওই দিন নিরাপত্তায় দুই হাজার পুলিশ মোতায়েন থাকবে। এছাড়া থাকছে দুটি কুইক রেসপন্স টিম, মেডিক্যাল টিম, আম্বুলান্স ও দমকল বাহিনী। রাজ্য সরকার, ইন্ডিয়ান আর্মি ও বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের সহযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে এই ডুরান্ড কাপ।

ডুরান্ড কাপ এর উদ্বোধন হবে বিকেল পাঁচটায়। খেলা শুরু হবে সন্ধ্যা ৬ টায়। সবকটি গেট খুলে দেওয়া হবে বিকেল ৩ টায়। ভিআইপিগেটসহ আরও ৬টি গেট এদিন খোলে দেওয়া হবে। গেট নম্বর ১ ও ২ মোহনবাগান সমর্থকদের জন্য। গেট নম্বর ৩ ইন্ডিয়ান আর্মি। গেট নম্বর ৩এ স্কুলের ছাত্রছাত্রী ও গেট নম্বর ৪,৫ মহামেডান সমর্থকদের এর জন্য নির্ধারিত।

এছাড়া শুক্রবার খেলা শুরুর আগে থেকেই ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করা হবে। ইন্ডিয়ান আর্মিদের বাস কাদাপাড়া দিয়ে স্টেডিয়ামে আসতে পারবে। স্কুলবাসগুলোকে বেলেঘাটা ক্রসিং দিয়ে ঢুকতে দেওয়া হবে। যে সব সাধারণ সমর্থক গাড়ি নিয়ে আসবেন তারা ১৩ নম্বর ট্যাঙ্ক, ক্যানেল সাইট ও কিছু ফাঁকা মাঠে গাড়ি রাখতে পারবেন।

ডুরান্ড কাপে ১৬টি দল খেলবে। এর মধ্যে থাকছে আই লিগের সাতটি দল। আইএসএলের পাঁচটি দল। চারটি দল থাকবে সেনা বাহিনীর। সেনা বাহিনীর চারটি দল হল আর্মি রেড, আর্মি গ্রিন, বায়ুসেনা ও নৌসেনা দল। উদ্বোধনী ম্যাচ খেলবে মোহনবাগান ও মহামেডান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।