লখনউ: সাত ফুট লম্বা রামের মূর্তি উন্মোচন করলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। শুক্রবার অযোধ্যায় রামের মুর্তি উন্মোচন করলেন তিনি।

৩৫ লক্ষ টাকা দিয়ে ওই মূর্তি কেনা হয়েছে কর্ণাটক থেকে। একটি কাঠের ব্লক দিয়েই পুরো মূর্তিটি তৈরি করা হয়েছে।

অযোধ্যা পরিদর্শনে গিয়ে রাম মূর্তি উন্মোচনের পর উন্নয়নের বিভিন্ন কাজও খতিয়ে দেখবেন তিনি। ‘রাম কি পৈড়ি’তে কিছু অসম্পূর্ণ কাজ আছে, সেগুলি পরিদর্শন করবেন যোগী। এছাড়া অযোধ্যা বাস স্ট্যান্ড, গুপ্তার ঘাটেও কিছু কাজকর্ম ঘুরে দেখবেন তিনি।

দিন কয়েক আগেই শিবসেনার পক্ষ থেকে মোদী সরকারকে রামমন্দির গঠনের আহ্বান জানানো হয়েছিল৷ তারপরেই যোগী সরকারের এই পদক্ষেপ নি:সন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে৷

২০১৭ সালের অক্টোবরে আদিত্যনাথের সরকার সরযূ নদীর তীরে এই রামমূর্তি গড়ার কথা ঘোষণা করেছিল৷ বিভিন্ন সংস্থার কাছ থেকে অর্থ নেওয়া হয়েছিল, তাদের সামাজিক দায়বদ্ধতার নিদর্শন হিসেবে এটি পর্যটনকে উৎসাহিত করবে বলে জানানো হয়েছিল৷

রাম মূর্তিটির উচ্চতা প্রথমে ঠিক হয়েছিল ১০০ মিটার৷ এরপর সম্প্রতি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ১৮৩ মিটারের সর্দার প্যাটেলের মূর্তি উদ্বোধন করলেন যা পৃথিবীর সর্বোচ্চ মূর্তি ৷ এরপরই অযোধ্যায় রামের মূর্তির উচ্চতা বাড়িয়ে ১৫১ মিটার করার কথা জানায় যোগী সরকার৷ তবে এই মূর্তিটি একেবারেই ছোট৷ ৭ ফুটের মূর্তি উন্মোচন করেই শরিক শিবিরে দাবিতে কিছুটা হলেও প্রলেপ দিতে চাইছেন যোগী আদিত্যনাথ৷

এদিকে, অযোধ্যা সফরে যাচ্ছেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে৷ সঙ্গে থাকবেন তাঁর দলের জয়ী সাংসদরা৷ ১৬ জুন সাংসদদের নিয়ে অযোধ্যা যাবেন উদ্ভব ঠাকরে৷ রাম লাল্লাকে অযোধ্যায় প্রণাম করতে যাচ্ছেন তিনি৷ শিব সেনা সূত্রে খবর৷ শিব সেনার পক্ষ থেকে এক ট্যুইট করে একথা জানানো হয়৷

উল্লেখ্য, অযোধ্যার রাম মন্দির নির্মাণের বিষয়টি বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টে বিচারাধীন। দীর্ঘ আইনি লড়াইয়ের পরে এই এই সমস্যা সমাধানের জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে সর্বোচ্চ আদালত। আগামী ১৫ অগস্ট সেই কমিটির রিপোর্ট জমা দেওয়ার কথা রয়েছে।