লখনউ: জঙ্গিদের সমর্থক হচ্ছে কংগ্রেস এবং সমাজাবাদী পার্টি। এই ভাষাতেই দুই বিরোধী দলকে আক্রমণ করলেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে ওই রাজ্যে জোটবদ্ধ হয়েছে যুযুধান দুই পক্ষ সমাজবাদী পার্টি(সপা) এবং বহুজন সমাজবাদী পার্টি(বিএসপি)। কংগ্রেসকে জোটে আহ্বান জানালেও সেই ডাকে সাড়া দেয়নি হাত শিবির। এই অবস্থায় ওই রাজ্যে কংগ্রেস এবং জোট শরিক সপাকে একযোগে আক্রমণ করেছেন বিজেপির দাপুটে নেতা যোগী আদিত্যনাথ।

আরও পড়ুন- গত লোকসভা নির্বাচনের তুলনায় আরও বেশি আসন পাবে বিজেপি: অমিত

শুক্রবার খাসতালুক গোরক্ষপুরে নির্বাচনী জনসভা করেন যোগী। সেখানেই কংগ্রেস এবং সপাকে সন্ত্রাসবাদীদের সমর্থক বলে দাবি করেছেন যোগী। নিজের এই বক্তব্যের স্বপক্ষে জোরাল যুক্তিও দেখিয়েছেন তিনি।

সপাকে আক্রমন করে যোগী আদিত্যনাথ বলেছেন, “অখিলেশ যাদবের নেতৃত্বে উত্তর প্রদেশের সরকার ক্ষমতা পেতেই অনেক অপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নিয়েছিল। সেই তালিকায় অযোধ্যার রাম মন্দিরে হামলা চালানো ব্যক্তি এবং কাশির সঙ্কটমোচন মন্দিরে হামলাকারীরাও ছিল।” কংগ্রেসকে আক্রমণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, “কেন্দ্রে কংগ্রেস ক্ষমতা পেলে দেশদ্রোহী আইন লঘু করে দেওয়ার কথা বলেছে তাদের ইস্তেহারে। যার অর্থ মাওবাদী এবং সন্ত্রাসবাদীদের মদত দেওয়া।”

আরও পড়ুন- গুজরাত দাঙ্গার পর মোদীকে মুখ্যমন্ত্রিত্ব থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন বাজপেয়ী: যশবন্ত

উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ দাবি করেছেন যে সপা-বিএসপি জোট এবং কংগ্রেস দেশের নিরাপত্তা নিয়ে খেলা করছে। এই বিষয়ে মোদীর প্রশংসা শোনা গিয়েছে যোগীর মুখে। সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এবং বালাকোটে এয়ার স্ট্রাইকের উদাহরণ দিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “দিল্লিতে বসে মোদী কোথা বললে ইসলামাবাদে পাক প্রধানমন্ত্র ইমরান খান ভয় পায়।”

গোরক্ষপুর লোকসভা কেন্দ্রের দীর্ঘদিনের সাংসদ ছিলেন যোগী আদিত্যনাথ। ২০১৭ সালে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরে বিজেপির হাতছাড়া হয়ে যায় ওই আসনটি। উপনির্বাচনে গোরক্ষপুর থেকে জিততে পারেনি পদ্মের প্রার্থী। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে গোরক্ষপুরে বিজেপির টিকিটে লড়াই করছেন ভোজপুরী অভিনেতা রবি কিষাণ। আগামি ১৯ তারিখ সপ্তম দফায় গোরক্ষপুরে ভোট গ্রহণ হবে।