লখনউ: সাধারণ মানুষ কখনও সমাজে ভেদাভেদ করে না। সমাজে সাম্প্রদায়িকতা এবং হিংসা ছড়ায় রাজনৈতিক নেতারা। এই সকল নেতাদের পুড়িয়ে মারা উচিত। এমনই মনে করেন উত্তর প্রদেশের মন্ত্রী তথা যোগী আদিত্যনাথের মন্ত্রীসভার সদস্য ওম প্রকাশ রাজবর।

২০১৭ সালের মার্চ মাসে উত্তর প্রদেশে বিজেপির শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। যার পরিচালনায় রয়েছেন যোগী আদিত্যনাথ। জোট শরিক সুহেলদেব ভারতীয় সমাজ পার্টির হাতে দেওয়া হয়েছিল অনগ্রসর শ্রেণী উন্নয়ন এবং বিকলাঙ্গ মানুষদের উন্নয়ন মন্ত্রকের দায়িত্ব। পার্টির প্রধান হিসেবে মন্ত্রিত্ব পেয়েছেন ওম প্রকাশ।

যোগীর এই মন্ত্রী রবিবার প্রকাশ্য জনসভায় দাঁড়িয়ে সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে বিজেপিকে আক্রমণ করেছেন। বিজেপির এই নোংরা রাজনীতি থেকে সাধারণ মানুষকে দূরে থাকার কোথাও বলেছেন ওম প্রকাশ রাজবর। তাঁর কথায়, “কখনও দেখেছেন হিন্দু-মুসলিম হিংসায় কোনও নেতা মারা গিয়েছে? নেতারা কেন মরে না? যে সব নেতারা ভাগাভাগি করতে আসবে তাঁদের জ্যান্ত পুড়িয়ে দেওয়া উচিত। যাতে তাঁদের উচিত শিক্ষা হয়।”

বিজেপির এই সাম্প্রদায়িকতা অর্থহীন বলেও দাবি করেছেন সুহেলদেব ভারতীয় সমাজ পার্টির প্রধান ওম প্রকাশ রাজবর। তাঁর মতে, “ওরা(বিজেপি) হিন্দু-মুসলিম ভাগাভাগি করে। এটা জানে না যে ভারতের সংবিধান অনুসারে ভোটাধিকার থাকলে সকলেই এদেশের নাগরিক। তাদের দেশ থেকে তাড়ানো যাবে না।”

গত মাস তিনেক ধরে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কেন্দ্রের মোদী এবং তাঁর নিজের রাজ্যের যোগী সরকারকে কাঠগড়ায় তুলেছেন ওম প্রকাশ রাজবর। যা নিয়ে বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে বিজেপি তথা এনডিএ নেতৃত্ব। এই বিষয়ে শনিবার ওম প্রকাশ রাজবর বলেছেন, “বিজেপি বললেই আমি এনডিএ সঙ্গ ত্যাগ করব এবং মন্ত্রিত্বও ছেড়ে দেব।”

শনিবারের সভায় ওম প্রকাশ সিং