লখনউ: আইন অনুসারে গোমাংস খাওয়া উত্তর প্রদেশে নিষিদ্ধ নয়। কিন্তু গো হত্যা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ ওই রাজ্যে। এই আইনের উপর ভিত্তি করে মৃত মহম্মদ আখলাকের পরিবারের উপর সরব হলেন বিজেপি সাংসদ যোগী আদিত্যনাথ।

২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে উত্তর প্রদেশের দাদরিতে মহম্মদ আখলাক নামের এক মুসলিম ব্যক্তিকে বাড়িতে গোমাংস রাখার অপরাধে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এক বিজেপি নেতা এবং এক পুলিশকর্মী সহ দশ জন ওই ঘটনায় জড়িত ছিলেন। দাদরির একটি ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে দেখা যায় মৃত আখলাকের বাড়ি থেকে উদ্ধার হওয়া মাংস গরুর নয়। কিন্তু চলতি সপ্তাহের মঙ্গলবার মথুরার একটি সরকারি ল্যাবরেটরির দেওয়া রিপোর্টে বলা হয়েছে আখলাকের বাড়ি থেকে পাওয়া মাংস আসলে গোমাংস। মথুরার ল্যাবরেটরিতে যে মাংসের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছিল তা আখলাকের বাড়ির বাওরে থেকে সংগ্রহ করা হয়েছিল।

দ্বিতীয় রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসার পরেই বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন বিজেপি সাংসদ আদিত্যনাথ। তাঁর দাবি, “আইন অনুযায়ী উত্তর প্রদেশে গোহত্যা নিষিদ্ধ। সেই কারণে গোহত্যার অপরাধে মৃত মহম্মদ আখলাকের পরিবারকে আদালতে তোলা হোক।” একইসঙ্গে ওই হত্যাকাণ্ডের কারণে আখলাকের পরিবারকে যে সমস্ত সরকারি সুবিধা দেওয়া হচ্ছে সেগুলিও বাতিল করার দাবি করেছেন তিনি।

আখলাকের বাড়ির মাংস নিয়ে মথুরা ল্যাবরেটরির রিপোর্ট নিয়ে ওই রাজ্যের পুলিশ প্রধান জাভেদ আহমেদ বলেছেন, “আইন আইনের পথেই চলবে।” সেইসঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন যে মাংস গরুর হোক বা অন্য কোনও প্রাণীর হোক, তাতে মানুষ হত্যার অপরাধ কমে যায় না।