নয়াদিল্লি: আগামী মার্চে চার বছর পূর্ণ হবে যোগী জমানার৷ তার আগে আরও একবার ভারতের সেরা মুখ্যমন্ত্রীর তকমা ছিনিয়ে নিলেন যোগী আদিত্যনাথ৷ এই নিয়ে টানা চারবার সেরার শীর্ষে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী৷

রাজনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ গোবলয়ের এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সেরা পারফর্মার হিসাবে শীর্ষ স্থান দখল করেছেন৷ মুড অফ দা নেশন (MOTN) জানুয়ারি ২০২১ সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে মোট ভোটের ২৫ শতাংশ পেয়েছেন যোগী আদিত্যনাথ৷ তবে হাথরাস গণধর্ষণ ও মৃত্যু মামলার পর কড়া সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন ভারতের অন্যতম কনিষ্ঠ এই মুখ্যমন্ত্রী৷ রাজ্যে ‘লাভ জিহাদ’ বিরোধী আইন নিয়েও সামালোচিত হয়েছিলেন তিনি৷ যদিও তাঁর জনপ্রিয়তায় এর কোনও প্রভাব পড়েনি৷ বরং তাঁর গত অগাস্টের পর অ্যাপ্রুভাল রেটিং বেড়েছে ১ পয়েন্ট৷

সমীক্ষা বলছে, আদিত্যনাথের লাভ জিহাদ বিরোধী আইনকে সমর্থন জানিয়েছে ৫৪ শতাংশ মানুষ৷ ২০১৭ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর বেশ কিছু বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন আদিত্যনাথ৷ এর মধ্যে রয়েছে গোহত্যা বিরোধী আইনও৷

অন্যদিকে, এই তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷ মোট ভোটের ১৪ শতাংশ পেয়েছেন তিনি৷ তৃতীয় স্থানে রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডিকে পিছনে ফেলে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছেন তিনি৷ চতুর্থ স্থানে রয়েছে চতুর্থবারের জন্য বিহারের মসনদে বসা নীতীশ কুমার৷ তিনি পেয়েছে ৬ শতাংশ ভোট৷ পঞ্চম স্থানে রয়েছেন জগনমোহন রেড্ডি৷

অন্যদিকে, রাজ্যস্তরে ৫১ শতাংশ ভোট নিয়ে সেরা মুখ্যমন্ত্রীর তকমা পয়েছেন নবীন পট্টনায়েক৷ ৪১ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷ এর পর রয়েছে যোগী আদিত্যনাথ (৩৯ শতাংশ), মহারাষ্ট্রের উদ্ধব ঠাকরে (৩৫ শতাংশ) এবং তেলেঙ্গানার কে চন্দ্রশেখর রাও (৩৫ শতাংশ)৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।