রিয়াধ ও আবুধাবি: লোহিত সাগরে তীরে হুদাইদা বন্দর ঘিরে আরব জোট ও ইয়েমেনে জোর করে ক্ষমতা দখলকারী হুথি গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ আরও বড় আকার নিল৷ আল জাজিরা সহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট, ইদ উৎসবের মাঝেই অন্তত এক ডজন আরব সেনাকে খতম করেছে হুথি গোষ্ঠী৷

ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধে সুন্নিপন্থী আরব দেশ নির্বাচিত সরকারকে সমর্থন করেছে৷ আর জবরদখলকারী হুথিদের সমর্থন জানাচ্ছে শিয়াপন্থী ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান৷ এর জেরে মুসলিম বিশ্ব আড়াআড়ি বিভক্ত৷

এ দিকে বিবিসির খবর, সংঘর্ষ চললেও ইয়েমেনের অপসারিত সরকারের দাবি, তারা এই সংঘর্ষে অংশ নেয়নি৷ যদিও সেই সরকারের প্রধান মনসুর হাদিকে পুনরায় কুর্সিতে বসাতেই সৌদি আরব নেতৃত্বাধীন জোট সেনা লাগাতার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে৷

লোহিত সাগর তীরে ইয়েমেনের বিখ্যাত বন্দর হুদাইদা৷ এই বন্দর দেশটির অন্যতম যাতায়াত পথ ও ‘জীবন রেখা’ (life line) হিসেবেই সুপরিচিত৷ সেই বন্দর ঘিরে সংঘর্ষ প্রবল আকার নিয়েছে৷ প্রাথমিকভাবে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহির বিমান বাহিনী একযোগে হুদাইদার উপরে বোমা বর্ষণ করে৷ তাতে বেশ কিছু ক্ষয়ক্ষতি হয়৷ এরপরেই স্থলপথে অভিযান শুরু হয়৷ উল্টো দিকে জবরদখলকারী হুথি গোষ্ঠীও হামলা চালাতে থাকে৷

২০১৫ সাল থেকে রক্তাক্ত ইয়েমেন৷ এই দেশের নির্বাচিত রাষ্ট্রপ্রধান মনসুর আল হাদিকে ক্ষমতাচ্যুত করেছে বিদ্রোহী হুথি গোষ্ঠী৷ হাদি পালিয়ে প্রথমে সৌদি আরবে আশ্রয় নেন৷ তাঁকে সমর্থন করে আরব সরকার৷ সেই সঙ্গে হাদির সমর্থনে এসে দাঁড়ায় আমিরশাহি সহ অন্যান্য আরবদেশগুলি৷ জোট সেনার আক্রমণে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর এডেনকে হুথি মুক্ত করা হয়েছে৷ সেখান থেকেই সরকার চালাচ্ছেন মনসুর হাদি৷ তবে রাজধানী সানা এখনো হুথিদের নিয়ন্ত্রণেই৷