নয়াদিল্লি: দেশজুড়ে ক্রমেই বাড়ছে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা মোকাবিলায় পিএম কেয়ার ফান্ড তৈরি করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ওই তহবিলের টাকা দেশের করোনা মোকাবিলায় কাজে লাগাবেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির অভিযোগ, ‘মোদী জনসাধারণের তহবিল স্বাস্থ্যসেবার জন্য নয়, ভ্যানিটি প্রকল্প এবং পিআর প্রচারে ব্যবহার করছেন।’

আবারও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সমালোচনায় সিপিএম। দিন কয়েক আগেই করোনা মোকাবিলায় পিএম কেয়ার ফান্ডের টাকা খরচ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন সিপিএম পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম। প্রধানমন্ত্রী ত্রাণ তহবিল থাকা সত্ত্বেও করোনা রুখতে আলাদা করে পিএম কেয়ার ফান্ড তৈরি ও সেই ফান্ডে মাত্র এক সপ্তাহে ৬৫০০ কোটি টাকা জমা পড়া নিয়ে সেলিম খোঁচা দিয়েছিলেন মোদীকে। সরকারি ওই তহবিল থেকে টাকা খরচে স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন সেলিম।

এবার সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরিও ওই একই ইস্যুতে বিঁধলেন প্রধানমন্ত্রীকে। টুইটে ইয়েচুরির অভিযোগ, ‘মোদী জনসাধারণের তহবিল স্বাস্থ্যসেবার জন্য নয়, ভ্যানিটি প্রকল্প এবং পিআর প্রচারে ব্যবহার করছেন। আমাদের সাহসী স্বাস্থ্যকর্মীরাও এই মূল্য পরিশোধ করছেন। দরিদ্র ও দুর্বলরা যারা এই সরকারের দানবন্দী, জনগণের কল্যাণে ইচ্ছাকৃত অবহেলার ফল বহন করছেন তাঁরা।’

গোটা দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু। এখনও পর্যন্ত দেশে নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৭৩৪। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। যে তথ্য যথেষ্ট উদ্বেগজনক।

শেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫৪৭ জন। মোট আক্রান্ত ৫৭৩৪ জনের মধ্যে বর্তমানে ৪৭৩ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। দেশে করোনায় মোট মৃত্যু বেড়ে ১৬৬।

তবে দেশে এখনও গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়নি বলে জানিয়েছে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন। ‘হু’ এর দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার প্রধান আধিকারিক পুনম ক্ষেত্রপাল সিং জানিয়েছেন, যখন সংক্রমণের উৎস খুঁজে পাওয়া যায় না, তখন সেই দেশে সামাজিক সংক্রমণ শুরু হয়েছে বলা যেতে পারে।

কিন্তু ভারতের ক্ষেত্রে বর্তমানে যে সমস্ত সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে, তাতে তার উৎস সন্ধান করা সম্ভব হচ্ছে। তাই ভারতে যে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়ে গিয়েছে, একথা এখনই বলা যাচ্ছে না।