মোবাইলের বাজারে অত্যন্ত জনপ্রিয় ব্র্যান্ড গুলির মধ্যে একটি হল শাওমি। তবে কেবল ফোন ই নয় অন্যান্য গ্যাজেটের ক্ষেত্রেও ক্রমেই জনপ্রিয় হয়েছে এই ব্র্যান্ড। মূলত অল্প দামের মধ্যে বেশ কিছু আকর্ষণীয় ফোন এবং গ্যাজেট বাজারে নিয়ে আসার কারণে যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়েছে শাওমি।তবে এবারে জানা গিয়েছে ভারতের বাজারে নিজের ব্যবসা বাড়ানোর জন্য এক নতুন পদক্ষেপ নিয়েছে শাওমি।

জানা গিয়েছে স্মার্ট টিভি এবং স্মার্ট ফোন প্রস্তুত করার জন্য ভারতের বাজারে নিজেদের কারখানা তৈরি করার পরিকল্পনা করেছে শাওমি। যদিও এই মুহূর্তে ভারতের বাজারে যথেষ্ট জনপ্রিয় শাওমি। পাশপাশি জানা গিয়েছে স্মার্ট ফোন তৈরি করার জন্য স্মার্ট ফোন তৈরি করার জন্য এবারে দুই নতুন সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছে শাওমি। যদিও ইতিমধ্যে শাওমি দুই উৎপাদনকারী সংস্থার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। আর এবারে আরও নতুন দুই সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ফলে এবারে মনে করা হচ্ছে উৎপাদন বাড়বে শাওমির। শাওমি ইতিমধ্যে হায়দরাবাদের এক সংস্থার সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। এর ফলে ভারতের বাজারে ক্রমেই ব্যবসা বৃদ্ধি হবে।

 

এও জানা গিয়েছে byd ইতিমধ্যে তামিলনাড়ুতে নিজের এক সংস্থা তৈরি করেছে। এর ফলে মনে করা হচ্ছে ভারতের বাজারে নিজেদের ব্যবসা বৃদ্ধি করতে সুবিধা হবে শাওমির। পাশপাশি কর্ম সংস্থানের ক্ষেত্রেও বিষয়টি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই বিষয়ে জানানো হয়েছে শাওমির তরফে। এর ফলে মনে করা হচ্ছে আগামী দিনেও মোবাইল বাজারে সুবিধা হবে সাধারণ মানুষজনের।

পাশপাশি খুব অল্প দামের মধ্যে ভারতের বাজারে ফোন এবং স্মার্ট টিভি ব্যবহার করতে পারবে। এই মুহূর্তে ভারতীয় ক্রেতাদের কাছে ক্রমেই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে স্মার্ট টিভি। আর সেই কারণেই মনে করা হচ্ছে সুবিধা হবে শাওমির এই পদক্ষেপের ফলে। শাওমির ভারতীয় প্রধানের তরফে জানানো হয়েছে ভারতীয় ক্রেতাদের কথা ভেবে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আর এর ফলে সুবিধা পাবেন ভারতীয় ক্রেতারা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.