মুম্বই: আঙুলে সফল অস্ত্রোপচার হল জাতীয় টেস্ট দলের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ঋদ্ধিমান সাহার। উল্লেখ্য, ইডেনে ঐতিহাসিক পিঙ্ক বল টেস্টের মাঝেই ডান হাতের অনামিকায় চোট পেয়েছিলেন বাংলার এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের তরফ থেকে মঙ্গলবার মুম্বইতে ঋদ্ধির সফল অস্ত্রোপচার সম্পর্কে জ্ঞাত করা হয় অনুরাগীদের। শীঘ্রই বেঙ্গালুরুতে ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে ঋদ্ধির রিহ্যাবিটেশন শুরু হবে বলে জানানো হয় বিবৃতিতে। বিসিসিআই’য়ের তরফ থেকে বিবৃতি মারফৎ জানানো হয়, ‘ঋদ্ধির চোট পরীক্ষা করতে বিসিসিআই মেডিক্যাল টিম একজন বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করে। সেখানেই ঋদ্ধির ডান হাতের অনামিকায় চিড় ধরা পড়ে এবং তাঁকে আস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেওয়া হয়। সেই পরামর্শমতো মঙ্গলবার মুম্বইতে সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে তাঁর। শীঘ্রই ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে রিহ্যাব শুরু করবেন তিনি।’

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বাংলদেশের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে প্রতিবেশী দেশকে ২-০ ব্যবধানে পরাস্ত করে ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শীর্ষস্থানে নিজেদের অবস্থন মজবুত করেছে ভারতীয় দল। এরইমধ্যে ঘরের মাঠ ইডেনে ঐতিহাসিক পিঙ্ক বল টেস্টে ব্যক্তিগত একটি মাইলস্টোন স্পর্শ করেন বাংলার বছর পঁয়ত্রিশের অভিজ্ঞ উইকেটরক্ষক। দেশের পঞ্চম উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান হিসেবে ইডেনে দ্বিতীয় টেস্টে উইকেটের পিছনে গ্লাভস হাতে ১০০ শিকারের মাইলফলক স্পর্শ করেন পাপালি (ঋদ্ধির ডাকনাম)।

যদিও গ্লাভস হাতে পাঁচদিনের ক্রিকেটে মহেন্দ্র সিং ধোনির ২৯৪ শিকারের নজির ছুঁতে গেলে এখনও অনেকটা পথ যেতে হবে বাংলার উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যানকে। পাঁচদিনের ক্রিকেটে উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে এছাড়া ১০০ শিকারের নজির রয়েছে সৈয়দ কিরমানি, নয়ন মোঙ্গিয়া ও কিরন মোরের।

সে যাইহোক, মাইলস্টোন ম্যাচেই ফের চোট পেয়ে বসেন ঋদ্ধি। গত অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ চলাকালীনও আঙুলে চোট পেয়েছিলেন অভিজ্ঞ এই উইকেটরক্ষক। যদিও তাতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজ খেলতে কোনওরকম সমস্যা হয়নি। এর আগে ২০১৮ আইপিএলের মাঝে কাঁধে মারাত্মক চোট পেয়েছিলেন তিনি। এই চোটের কারণে তাঁর কেরিয়ার নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছিল। ইংল্যান্ডে সফল আস্ত্রোপচারের এবং রিহ্যাবের পর চলতি বছর দীর্ঘ ১৮ মাস পর বাইশ গজে ফেরেন তিনি।

তবে এক্ষেত্রে আগামী বছর নিউজিল্যান্ড সফরে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য ঋদ্ধির হাতে সময় অনেকটাই।