স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: ফের চিকিৎসার গাফিলতি সরকারি হাসপাতালে৷ আঙুল কাটার পর এবার কান কাটা গেল সদ্যোজাতের৷ বালুরঘাটের সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ঘটনা। এক প্রসূতির সিজার করতে গিয়ে সদ্যজাতের ডান কানের কিছু অংশ কেটে যায়।

ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই শুরু হয়েছে বিক্ষোভ। দক্ষিণ দিনাজপুরের হিলির বাসিন্দা অসীম ওঁড়াও তার গর্ভবতী স্ত্রীকে বুধবার হাসপাতালে ভরতি করেছিলেন৷ সেদিন রাতেই সিজার করেন চিকিৎসক প্রশান্ত সরকার। তারপরেই ঘটে বিপত্তি৷

রোগির বাড়ির অভিযোগ সিজার করতে গিয়েই সদ্যোজাতের কান কেটে ফেলেছেন চিকিৎসক৷ ঘটনায় পরিবারের লোকেরা হাসপাতালে বিক্ষোভ দেখান ও লিখিত অভিযোগ করেন। উল্লেখ্য গত বছর কয়েক আগে বালুরঘাটের জেলা হাসপাতালে সদ্যোজাত এক শিশুর হাতের আঙ্গুল কাটা যায় নার্সের হাতে। যা নিয়ে রাজ্য জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছিল।

এব্যাপারে হাসপাতালের সুপার ডা: তপন বিশ্বাস জানিয়েছেন শিশুর কান কাটার যাওয়ার অভিযোগ পেয়েছেন তিনি৷ দ্রুত এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন সুপার৷ তবে হাসপাতাল সূত্রে খবর শিশুটি বর্তমানে সুস্থ আছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।