নয়াদিল্লি: যত দিন যাচ্ছে ততই বেড়ে চলেছে সোশ্যাল মিডিয়ার অপরাধমূলক কার্যকলাপ। প্রযুক্তি যে দিন দিন বিপদজ্জ্বনক হয়ে পড়ছে তা নিয়ে মঙ্গলবার উদ্বেগ প্রকাশ করল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সোশ্যাল মিডিয়ার অপব্যবহার যে দিনের পর দিন মাত্রাছাড়া রুপ ধারন করছে তা মনে করছে দেশের শীর্ষ আদালত। আর নিয়েই সোশ্যাল মিডিয়ার অপব্যবহার দ্রুত রুখতে মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সরকারকে এই বিষয়ে একটি গাইড লাইন তৈরি করার নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট।

এবিষয়ে আদালত কেন্দ্রীয় সরকারকে সাফ জানিয়ে দিয়েছে যে, দেশের কোথায় বসে সাইবার ক্রাইম করা হচ্ছে তা জানিনা বললে চলবে না। শুধু তাই নয় সাইবার ক্রাইম অপরাধ ধরার মত প্রযুক্তি আমাদের কাছে নেই বলে দায় এড়িয়ে গেলে চলবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। সাইবার ক্রাইম আটকানোর প্রযুক্তি যেখানে রয়েছে সেখান থেকে এনে প্রয়োগ করার কথাও জানিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত। সম্ভব হলে সেই প্রযুক্তি ব্যবহার করেই বন্ধ করতে হবে সাইবার ক্রাইম।

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি দীপক গুহ এবং অনিরুদ্ধ বোসের ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে যে, আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ার অপব্যবহার রুখতে কেন্দ্রীয় সরকারকে একটি গাইড লাইন নিয়ে আসতে হবে। বিচারপতির বেঞ্চ আরও জানিয়েছে, অনেক সোশ্যাল মিডিয়ার প্ল্যাটফর্ম অনলাইনে ভাইরাল হওয়া কোনও বিষয়ের বার্তা বা বক্তব্যের অরিজেনটর কে তাই সঠিক ভাবে জানাতে পারে না এই বিষয়টি বেশ উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করে সুপ্রিম কোর্ট।

সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রযুক্তিগত কোনও সিদ্বান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে হাইকোর্ট বা সুপ্রিম কোর্টের কোনও ক্ষমতা নেই। এই বিষয়ে যা পদক্ষেপ নেওয়ার তা কেন্দ্রীয় সরকারকেই নিতে হবে বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। আর এই ক্ষেত্রে সরকারকে তিন সপ্তাহের মধ্যে গাইড লাইন তৈরি করার সময়সীমা বেঁধে দিল শীর্ষ আদালত।

মঙ্গলবার শীর্ষ আদালত আরও জানিয়েছে, দেশে প্রযুক্তির উন্নতিতে যেমন যথেষ্ট উন্নত বৈজ্ঞানিক মনস্কতা সম্পন্ন মেধা রয়েছে ঠিক তেমনই একই ভাবে এই প্রযুক্তির অপব্যবহারের লোকের অভাব নেই বলে মন্তব্য করেন বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। সোশ্যাল ক্রাইম যাতে আরও বেশী করে রুখে দেওয়া যায় সেই ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারকে খুব শীঘ্রই কড়া পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট।

বেশ কিছুদিন আগে কেন্দ্রীয় সরকার সোশ্যাল মিডিয়ার প্রোফাইলের সঙ্গে আধার কার্ড জুড়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিল সেই বিষয়ে বলতে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তুষার মেহতা জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় আধার সংযোগের ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারকে আরেকটু ভাবনা চিন্তা করেই তবে কোনও পদক্ষেপ নিতে হবে। ঝট করে কোনও কিছু চাপিয়ে দেওয়া যায়না বলেও তিনি জানিয়েছেন।