চেন্নাই: উচ্চতম থেকে উচ্চতর মূর্তি তৈরির হিড়িক পড়েছে বেশ কয়েক বছর ধরে। ২০১৮-তে ভারত সরকার তৈরি করে বিশ্বের সবথেকে উঁচু মূর্তি। সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের সেই মূর্তি ‘স্ট্যাচু অফ লিবার্টি’র থেকেও উঁচু। ১৮২ ফুটের সেই মূর্তি প্রকাশ্যে আসার পর একাধিক এই ধরনের মূর্তি তৈরির প্রস্তাব উঠতে শুরু করে।

প্যাটেলের মূর্তির সঙ্গে পাল্লা দিতে ইতিমধ্যেই কাজ চলছে আরও দুটি মূর্তি তৈরির। মুম্বইতে তৈরি হচ্ছে ছাত্রপতি শিবাজীর মূর্তি, যার উচ্চতা হবে ২১২ মিটার আর অযোধ্যায় তৈরি হচ্ছে ১৫১ মিটারের রামের মূর্তি, যার সর্বমোট দৈর্ঘ্য হবে ২২৫ মিটার।

এবার আরও একটি মূর্তি তৈরির খবর শোনা গেল। কর্ণাটকের হাম্পি-কে হনুমানজির জন্মস্থান হিসেবে চিহ্নিত করা যায়। সেখানেই তৈরি হবে বিশ্বের সবথেকে উচুঁ হনুমান মূর্তি। যার উচ্চতা হবে ২১৫ ফুট। হাম্পির হনুমান জন্মভূমি ট্রাস্টের তরফ থেকে এই কথা জানানো হয়েছে।

বিভিন্ন গবেষণা থেকে উঠে এসেছে যে কর্ণাটকের এই হাম্প, যা কিষকিন্ধ্যা হিসেবেও পরিচিত, সেখানেই জন্ম নিয়েছিলেন হনুমানজি। New Indian Express-এর তথ্য অনুযায়ী, ওই মূর্তি হবে কপারের। তবে অযোধ্যায় যে রামের মূর্তি তৈরি হচ্ছে, তার থেকে ১০ ফুট ছোট করা হবে হনুমানজির মূর্তিকে, কারণ তিনি ছিলেন রাম ভক্ত। তবে খরচ কত পড়তে পারে, তা এখনও জানা যায়নি।

এখনও পর্যন্ত অন্ধ্রপ্রদেশের বিইজয়ওয়াড়ায় সবথেকে উঁচু হনুমান মূর্তিটি রয়েছে। ৪১ মিটারের ওই মূর্তির নাম ‘অভয় অনজনেয় হনুমান স্বামী।’ এছাড়া গত বছর কেরলের তিরুঅনন্তপুরমে তৈরি হয়েছে সবথেকে উঁচু শিব মূর্তি, যার উচ্চতা ১১২.২ ফুট।

এছাড়া যীশু খ্রিস্টের ১১৪ ফুটের মূর্তি তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে। কর্ণাটকের কনকপুরায় তৈরি হবে সেই মূর্তি।