কুয়ালালামপুর : লাগামছাড়া করোনা সংক্রমণের জেরে এবার বন্ধ হয়ে গেল বিশ্বের বৃহত্তম পিপিই কিট এবং গ্লাভস তৈরির কারখানা।

করোনা অতিমারির শুরুর প্রথম পর্যায় থেকেই গোটা বিশ্বের প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের পিপিই কিট এবং গ্লাভস সরবরাহ করে আসছে মালয়েশিয়ার এই কোম্পানি।

জানা গিয়েছে, বর্তমানে এই কোম্পানির প্রায় ২,৫০০ জন কর্মচারী করোনা সংক্রমিত। প্রত্যেকেই রয়েছেন কোয়ারেন্টাইনে। একসঙ্গে এতসংখ্যক শ্রমিক করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সংক্রমণের বিস্তার রোধে আপাতত কারখানা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

বৃহস্পতিবার এই খবর জানিয়েছে একটি বিবৃতি দিয়েছেন মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রক। সরকারের তরফে দেওয়া এই বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, বর্তমানে মালয়েশিয়ায় নতুন করে ১,৫১১ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যদিও এদের মধ্যে কতজন শ্রমিক আছে তা নির্দিষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। সংক্রমণের রেশ রুখতে এবং কারখানর বাকি শ্রমিকদের সুরক্ষা এবং নিরাপত্তার কথা ভেবে আপাতত তাঁদের ২৮ টি কারখানাতেই পিপিই কিট এবং গ্লাভসের উৎপাদন বন্ধ রাখা হচ্ছে।

এছাড়াও জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত শ্রমিকদের কারখানার পাশেই একটি হোটেলে কোয়ারেন্টাইন করে রাখা হয়েছে। শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাঁটাতারের বেড়া দিয়ে ঘিরে দেওয়া হয়েছে হোটেলটিকে।

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় মালয়েশিয়ায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ২,১৮৮ জন। এখনও পর্যন্ত সেখানে মোট করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ৫৮,৮৫০ জন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।