লন্ডন: সুযোগ ছিল চার জনের সামনে৷ টপকে যাওয়া তো দূরের কথা, সচিন তেন্ডুলকরকে ছুঁতেও পারলেন না কেউ৷ খুব কাছে এসে থেমে যেতে হয় রোহিত শর্মা ও ডেভিড ওয়ার্নারকে৷ ভারত ও অস্ট্রেলিয়া সেমিফাইনালের হার্ডলে আটকে না গেলে আরও একটা ম্যাচ হাতে পেতেন রোহিত ও ওয়ার্নার৷ তাহলে হয়ত দু’জনের কেউ একজন গড়তে পারতেন নতুন বিশ্বরেকর্ড৷ তা না হওয়ায় পোল পজিশনে চলে এসেছিলেন জো রুট৷ কেন উইলিয়ামসন ছিলেন ঠিক তাঁর পিছনেই৷ ফাইনালে ব্যাট হাতে দু’জনেই বড় রান করতে ব্যর্থ হওয়ায় অন্তত আরও চার বছরের জন্য অক্ষত থেকে গেল মাস্টার ব্লাস্টারের বিশ্বকাপ রেকর্ড৷

আরও পড়ুন: গাড়ি চালিয়ে ১৭টি দেশ পেরিয়ে বিরাটদের ম্যাচ দেখেন মাথুর

একটি বিশ্বকাপে সব থেকে বেশি রান করার রেকর্ড রয়েছে সচিনের নামে৷ ২০০৩ বিশ্বকাপে সাকুল্যে ৬৭৩ রান করেন তিনি৷ এবার রোহিত শর্মা থেমে যান সচিনের থেকে ২৫ রান দূরে৷ ডেভিড ওয়ার্নার ২৬ রানের জন্য লিটল মাস্টারকে ছুঁতে পারেননি৷ জো রুট ও কেন উইলিয়ামসন ফাইনালের আগে দাঁড়িয়েছিলেন যথাক্রমে ৫৪৯ ও ৫৪৮ রানে৷ অর্থাৎ লর্ডসে রুট ১২৫ এবং উইলিয়ামসন ১২৬ রান করলে সচিনকে টকপে নতুন নজির গড়তে পারতেন৷ শেষমেশ দু’জনেউ লক্ষ্যে পৌঁছতে ব্যর্থ হন৷

আরও পড়ুন: ধোনির ব্যাটিং অর্ডার নিয়ে মুখ খুললেন শাস্ত্রী

কেন উইলিয়ামসন আউট হন ব্যক্তিগত ৩০ রানে৷ অর্থাৎ এবারের বিশ্বকাপে তাঁর সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫৭৮ রান৷ জো রুট সাজঘরে ফেরেন মাত্র ৭ রান করে৷ সুতরাং তাঁকে বিশ্বকাপ শেষ করতে হয় ৫৫৬ রানে৷ যার অর্থ, এই বিশ্বরেকর্ড আপাতত সচিনের নামেই থাকছে৷

আরও পড়ুন: বিরাটের থেকে রোহিতের হাতে নেতৃত্ব তুলে দেওয়ার দাবি

রুট ও উইলিয়ামসন ছুঁতে পারলেন না রোহিত শর্মাকেও৷ বাকিদের মধ্যে কেই নাগালের মধ্যে না থাকায় ৬৪৮ রান করা রোহিতই পরিণত হলেন এবারের বিশ্বকাপে সব থেকে বেশি রান করা ক্রিকেটারে৷ ৯ ম্যাচে ৫টি সেঞ্চুরি ও ১টি হাফসেঞ্চুরি করেন রোহিত৷ ৩টি সেঞ্চুরি ও ৩টি হাফসেঞ্চুরি করা ডেভিড ওয়ার্নার ১০ ম্যাচে সংগ্রহ করেছেন ৬৪৭ রান৷ শাকিব আল হাসান ৮ ম্যাচে সংগ্রহ করেছেন ৬০৬ রান৷ উইলিয়ামসন ও রুট রয়েছেন তালিকার যতাক্রমে চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানে৷