লখনউ: অনেকেই আজকাল ‘গাই’ অথবা ‘ওম’ শব্দটা শুনলে চমকে ওঠে। অনেকের তো চুল সোজা হয়ে যায়। কিন্তু এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। বুধবার এক প্রকল্পের উদ্বোধন করতে গিয়ে একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, এই শব্দগুলো শুনলে অনেকে ভাবে দেশ ষোড়শ শতাব্দীতে ফিরে যাচ্ছে। কিন্তু, পশুদের ছাড়া গ্রামীণ অর্থনীতির কথা কি কেউ বলতে পারবেন? প্রশ্ন তোলেন মোদী।

এদিন উত্তরপ্রদেশে জাতীয় পশু রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন তিনি। সেখানে তিনি বলেন, ‘‘কিছু মানুষ, যদি তাঁরা ‘গরু’ এবং ‘ওম’-এর মতো শব্দ শোনেন, তাহলে তাঁদের চুল খাড়া হয়ে যায়। তাঁরা ভাবতে থাকেন দেশ ষোড়শ শতাব্দীতে ফিরে যাচ্ছে। পশুদের ছাড়া গ্রামীণ অর্থনীতির কথা কি কেউ বলতে পারবেন?”

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘‘পরিবেশ ও প্রাণীকুল ভারতের অর্থনীতিতে সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা নতুন ও শক্তিশালী ভারতের দিকে এগোতে পারব যদি প্রকৃতি ও অর্থনৈতিক অগ্রগতির মধ্যে সমতা আনতে পারি।” প্রধানমন্ত্রী যখন বক্তৃতা দিচ্ছিলেন, তখন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোদী আদিত্যনাথ।

এই পরিকল্পনার মূল লক্ষ্য ৫০০ মিলিয়ন গবাদি পশু যাদের মধ্যে মোষ, ভেড়া, ছাগল এবং শুয়োরদের চিকিৎসা করা। এই প্রকল্প আগামী পাঁচ বছর অর্থাৎ ২০২৪ সাল পর্যন্ত চালানো হবে এবং তার জন্য খরচ হবে ১২,৬৫২ কোটি টাকা। এছাড়াও এই প্রকল্পে ১৭৫০ টি গরু ছাগল ও মোষকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। প্রধানমন্ত্রী পশুদের অস্ত্রোপচারের সাক্ষীও থাকবেন।

এছাড়াও তিনি পঁচিশজন মহিলা যারা আবর্জনা থেকে প্লাস্টিক বাছাই করেছেন দূষণ রোধ করার জন্য তাদের সম্মানিত করবেন বলে জানিয়েছেন। ১০০ মিনিট নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তিনি শহরও ঘুরে দেখবেন।

এদিন তিনি সকলকে পাটের ব্যাগ ব্যবহার করার জন্য অনুরোধ করেন এবং সকল বিক্রেতাদের ও প্যাকিং করার ক্ষেত্রে যতটা সম্ভব কম প্লাস্টিক ব্যবহার করতেও অনুরোধ করেছেন।