স্টাফ রিপোর্টার, বারাসত: শাশুড়ি এবং বৌমার লড়াই দেখে সবাই অভ্যস্ত। সম্প্রতি বিষয়টি আরও জনপ্রিয় হয়েছে টেলিভিশন সিরিয়ালের সৌজন্যে। কিন্তু শাশুড়ি-বৌমার যৌথ প্রয়াস নজর কাড়ল পুলিশের। তাদের গ্রেফতার করে জেলে পুড়ল পুলিশ।

পড়শি বৃদ্ধা বাড়ির ফুল গাছ থেকে ফুল তুলেছিল। শুধু তাই নয়, সাধের বাগানের মাটি থেকে তুলেছিল দুর্বা। এই অপরাধে ওই বৃদ্ধাকে করা হল মারধোর। উল্লিখিত শাশুড়ি-বৌমা এই ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত। বৃদ্ধাকে শুরু মারধোর করেই ক্ষান্ত থাকেনি শাশুড়ি-বৌমা। রাগ মেটাতে কেটে নিয়েছিল বৃদ্ধার চুল।

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বারাসত পুরসভার পশ্চিম বনমালীপুর পুর এলাকায়। নিগৃহীত বৃদ্ধা মহিলার নাম সন্ধ্যা সরকার। অভিযুক্তেরা হল আক্রান্ত বৃদ্ধার প্রতিবেশী রমা রায় এবং তার পুত্রবধূ তনিমা রায়।

শুক্রবারের এই ঘটনায় খুব স্বাভাবিকভাবেই ভেঙে পড়েছেন নির্যাতিতা সন্ধ্যা দেবী। এই বয়সে এসে এই অপমান টা যেন কিছুতেই ঠিক মেনে নিতে পারা যাচ্ছে না। সন্ধ্যা দেবীর পাশে দাঁড়িয়েছেন তাঁর স্বামী পান্না লাল সরকার এবং অন্য প্রতিবেশীরা।

এদিন বিকেলেই বারাসত মহিলা থানায় রমা রায় এবং তার পুত্রবধু তনিমা রায়ের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন সন্ধ্যা সরকারের স্বামী পান্নালাল সরকার। পুলিশ জানিয়েছে অভিযোগের ভিত্তিতে রমা রায় এবং তনিমা রায়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্ত রমা এবং তনিমা মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করলেও সন্ধ্যার মাথার চুল কাটার কথা স্বীকার করেছে।