বার্মিংহ্যাম: ক্রিকেটপ্রমীদের জন্য ভালো খবর! অবশেষে কমনওয়েলথ গেমসে স্থান পেলে ক্রিকেট৷ বার্মিংহ্যামে ২০২২ কমনওয়েলথ গেমসে অন্তর্ভুক্ত হল মহিলাদের টি-২০ ক্রিকেট৷ মঙ্গলবার এই ঘোষণা করে কমনওয়েলথ গেমস ফেডারেশন৷ কমনওয়েলথ গেমেসের আসর বসবে ২০২২-এর ২৭ জুলাই থেকে ৭ অগস্ট৷

১৯৯৮-এর পর ফের কমনওয়েলথ গেমসে ফিরল ক্রিকেট৷ কুয়ালা লামপুরে ১৯৯৮ কমনওয়েলথ গেমসে প্রথম অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল ক্রিকেট৷ সেটা ছিল ৫০ ওভারের ফর্ম্যাট৷ সেবার সোনা জিতেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা৷ খেলেছিলেন সচিন তেন্ডুলকর, রিকি পন্টিং ও জাক ক্যালিসের মতো কিংবদন্তি ক্রিকেটাররা৷ ২৪ বছর পর ফের কমনওয়েলথ গেমেসে দেখা যাবে বাইশ গজের লড়াই৷ মহিলাদের টি-২০ লড়াই হবে আট দলের৷ প্রতিটি ম্যাচ হবে এজবাস্টানে৷

আইসিসি-র তরফে সিজিএফ-এর এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানানো হয়৷ আইসিসি-র চিফ একজিকিউটিভ মানু সহনি এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান,‘মহিলা ক্রিকেটের কাছে এটি একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত৷ আমরা একত্রিত হয়ে কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেটের জন্য দরবার করেছিলাম৷ মহিলা ক্রিকেট দিনের পর দিন আরও শক্তিশালী হচ্ছে৷ ২০২২ বার্মিংহ্যাম কমনওয়েথ গেমেসে মহিলা টি-২০ ক্রিকেটের অন্তর্ভুক্তিতে আমরা দারুণ খুশি৷’

আইসিসি-র সিইও আরও বলেন, ‘প্রথমত টি-২০ ফর্ম্যাট কমনওয়েলথ গেমেসের জন্য আদর্শ৷ বিশ্বের দরবারে মহিলা ক্রিকেটকে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য এর থেকে ভালো আর কিছু হতে পারে না৷ ২০২২ কমনওয়েলথ গেমেসে যারা খেলবে তাদেক কাছে, এটা হবে অসাধারণ অভিজ্ঞতা৷

ইসিবি-র চিফ একজিকিউটিভ টম হারিসন, ‘আমরা দারণ খুশি যে, বার্মিংহ্যামে ২০২২ কমনওয়েথ গেমসে মহিলাদের টি-২০ ক্রিকেট অন্তর্ভুক্ত হয়েছে৷ কমনওয়েলথ গেমসের ইতিহাসে এটা মহিলাদের কাছে সেরা প্যারা স্পোর্ট প্রোগ্রাম৷’

কমনওয়েলথ গেমস ফেডারেশন প্রেসিডেন্ট ড্যামে লুইস মার্টিন বলেন, ‘কমনওয়েলথ গেমসকে ক্রিকেটের কামব্যাককে স্বাগত জানাচ্ছি৷ এটা ঐতিহাসিক দিন৷ আমরা বিশ্বাস করি, কমনওয়েলথ গেমেসে মহিলা টি-২০ ক্রিকেট সারা বিশ্বে নিজেদের মেলে ধরবে৷ এটা ওদের জন্য দারণ প্ল্যাটফর্ম৷’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।