কেয়া শেঠ: আন্তজার্তিক নারী দিবসে সব মা-বোনেদের আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা৷ আমার কাছে নারী মানেই অদ্বিতীয়া৷ আমি মনে করি প্রত্যেক নারীর মধ্যেই রয়েছে অসীম প্রতিভা, অফুরন্ত শক্তির ভান্ডার৷ যে মহিলা দশটা-ছটার অফিস সামলেও সন্তান এবং পরিবারের জন্য হাসিমুখে দায়িত্ব পালন করেন৷যে মহিলা দশ বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করে গোটা সংসার সামলান কিংবা ভোররাতে ঘুম থেকে উঠে ট্রেন ধরে গ্রাম থেকে ফুল বা সবজি বেচতে শহরে আসেন যাঁরা, তারা সব্বাই আমার কাছে অদ্বিতীয়া৷

‘দেওয়ালের এপার থেকে ওপারটায় কী আছে দেখার ক্ষমতা রাখতে হবে…’ বিশিষ্ট অ্যারোমাথেরাপিস্ট কেয়া শেঠের চোখে নারী দিবস

যাঁরা গৃহবধূ তাঁরাও কিন্তু অফুরান ক্ষমতার অধিকারী৷ নারী শুধুই মমতা, ভালবাসা বাকরুণার প্রতিমূর্তি নয়, সে হল শক্তির আধার৷সবাই তাঁরা দুর্গার অংশ,দুর্গতিনাশিনী৷শুধু সেই শক্তির সঠিক প্রকাশ ঘটে না সবসময়৷যে নারী সংসার সামলান সে বাইরের জগতে দাপট দেখাতে পারবেন না, এটা আমি বিশ্বাস করি না৷আর আমি এও মনে করি না যে, কোনও কাজ শুরু করার জন্য বয়সের কোনও সীমারেখা আছে৷

যে কোনও বয়সেই কাজ শুরু করা যেতে পারে৷ এর জন্য প্রথমেই চাই সদিচ্ছা৷ইচ্ছে থাকলেই এগিয়ে যেতে পারেন যে কোনও নারী৷তবে বাড়ি বানাতে গেলে প্রথমেই যেমন চারটে পিলার গাঁথতে হয় ঠিক তেমনই  সাফল্য অর্জন করতে গেলে প্রয়োজন চারটি স্তম্ভ৷এই চার স্তম্ভ হল আত্মবিশ্বাস, দূরদর্শিতা, সততা এবং কর্মক্ষমতা৷

প্রথমেই মনে করতে হবে আমি পারব৷ অনেকেই হয়তো অনেক স্বপ্ন দেখেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত পিছিয়ে আসেন এই ভেবে যে ‘আমি কি পারব’?এরকম নেগেটিভ চিন্তাভাবনা রাখলে একেবারেই চলবে না৷নিজের উপর আস্থা এবং বিশ্বাস রাখতে হবে৷নিজের প্রতিদিনের সামান্যতম কাজগুলির দিকেও তাকিয়ে দেখুন, বুঝতে পারবেন আপনিও কতটা সক্ষম৷ এভাবেই আত্মবিশ্বাস সঞ্চয় করুন৷ তবে হ্যাঁ, দূরদর্শিতা ছাড়া কোনও বড় কাজ করা সম্ভব নয়৷ অনেক আগে থাকতে আগামীর সম্ভাবনা এবং সাফল্য খতিয়ে দেখার ক্ষমতা চাই৷দেওয়ালের এপার থেকে ওপারটায় কী আছে দেখার ক্ষমতা রাখতে হবে৷আর নিজের কাজের প্রতি একাগ্র এবং একনিষ্ট থাকতেই হবে৷যেমন-তেমন করে কাজ করলাম আর সাফল্য এসে গেল এটা কোনদিনই সম্ভব নয়৷নিজের কাজের প্রতি সৎ থাকলে তবেই একদিন আপনার কাজ শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করবে৷

আর দরকার কর্মক্ষমতা৷ভেঙে পড়লে চলবে না৷সম্পূর্ন ডেডিকেশন নিয়ে কাজ করার পরও প্রথমে কিছু ব্যর্থতা আসতে পারে৷ ব্যর্থতা থেকেই শিক্ষা নিতে হবে৷ভুলগুলি ভেঙে গড়ে নিতে নিতেই একদিন খুঁজে পাওয়া যাবে সঠিক পথ৷ তাই পরিস্থিতি যতই প্রতিকূল হোক উদ্যম হারালে চলবে না বা কাজ থামিয়ে দিলে চলবে না৷ নিজের লক্ষ্য স্থির রেখে পরিশ্রম করতে হবে অবিরাম৷ আমি বিশ্বাস করি এতেই সাফল্য আসবেই৷আর কোনও কাজকেই ছোটো মনে করবেন না৷

হয়তো খুব ভাল রান্না করেন, সুন্দর সেলাই জানেন অথবা হাতের কাজ করতে ভালবাসেন অবসর সময়ে , সেটাই হোক না আপনার কাজের ক্ষেত্র৷আপনি হয়তো জানেনই না আপনার ঘরের মধ্যেই লুকিয়ে আছে সাফল্যের শীর্ষে ওঠার সিঁড়িটা৷শুধু খুঁজে নেওয়ার অপেক্ষা৷ আসুন আজ থেকেই শুরু করা যাক খোঁজাটা৷

আমার লেখা পড়ে একজন নারীও যদিও সফল হন তাহলে সবচেয়ে বেশি গর্বিত হব আমি৷ কারণ আমিও যে একজন নারী৷ এই অন্বেষণের মধ্যে দিয়েই সার্থক হয়ে উঠুক আজকের নারী দিবস৷ এটাই আমার কামনা৷ সবাই সফল হোন আর সাফল্যের সৌন্দর্য্যে প্রকৃত অদ্বিতীয়া হয়ে উঠুন আজকের সব নারী৷