প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: আর আড়ালে আবডালে নয়৷ এবার দিনের বেলা ছিনতাইবাজদের দৌরাত্ম্য পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুকে৷ ছিনতাইবাজদের হাত থেকে রেহাই নেই মহিলাদেরও৷ শহরে ক্রমশ ছিনতাইয়ের ঘটনা বাড়ায় পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন শহরবাসী৷

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার সকাল ১১টা নাগাদ মিনতি ভৌমিক তমলুকের জনুবাসন এলাকার একটি ব্যাংক থেকে টাকা তুলে বাড়ি ফিরছিলেন৷ ব্যাংক থেকে বের হয়ে কিছুটা এগোতেই একটি বাইকে দু’জন ছিনতাইবাজ ধাওয়া করে৷ মহিলার হাতে থাকা ব্যাগ ছিনিয়ে নিতে চেষ্টা করে তারা৷

আরও পড়ুন: শবরদের আলোকবৃত্তে এনে পুরস্কৃত পুরুলিয়ার অরূপ

অভিযোগ, বাধা দিলে মিনতিদেবীর সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হয় ছিনতাইবাজদের৷ এই সময় মহিলার শাড়ি ছিনতাইকারীদের বাইকের চাকায় জড়িয়ে যায়৷ সেই অবস্থাতেই কিছুদূর এগিয়ে যেতে থাকেন তিনি৷ এই দৃশ্য দেখে অন্যরা তাড়া করলে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা৷

আহত মিনতি ভৌমিককে ভরতি করা হয় হাসপাতালে৷ ঘটনার প্রতিবাদে হলদিয়া মেচেদা রাজ্য সড়ক প্রায় দেড় ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে জনতা৷

আরও পড়ুন: বড়সড় চোটের আঘাত থেকে বাঁচলেন জিমি

আরও পড়ুন: জয়পুরে জীবিত ব্যক্তির শেষকৃত্য!

গত কয়েক মাস ধরেই তমলুক জুড়ে বেড়েছে দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য৷ তাতে অবশ্য নজর দেয়নি পুলিশ৷ তারপর প্রকাশ্যে ঘটে গেল এদিনের ঘটনা৷ ফলে পুলিশের ভূমিকা নিয়েই প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন শহরবাসী৷

অবরোধ তুলতে এলে এদিন উত্তেজিত জনতার ক্ষোভের মুখে পড়তে হয় পুলিশকে। পরিস্থিতি বেগতিক বুঝে শহরের নিরাপত্তা বাড়ানোর আশ্বাস দিয়েই অবশ্য দায় এড়িয়েছে তারা৷

আরও পড়ুন: শ্রমিক ধর্মঘটে ফের সংকটে চা-শিল্প

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।