রাঁচি: ফের সামনে এল নৃশংস ঘটনা। এবারে এক মহিলাকে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটল ঝাড়খণ্ডের দুমকাতে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে উত্তেজনা। ক্রমেই উত্তরপ্রদেশে ঘটে চলা একের পর এক ঘটনা সামনে আসাতে অবাক হয়েছিল সাধারণ মানুষজন। তবে এবারে এক নৃশংস ঘটনা ঘটল ঝাড়খণ্ডের দুমকাতে। বাজার থেকে ফেরার পরে এক মহিলাকে ধর্ষণ করে ১৭ জন মদ্যপ। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে উত্তেজনা।

জানা গিয়েছে, ঘটনাটি ঘটেছিল মঙ্গলবার। ঘটনাটি ঘটেছে মুফাসসিল পুলিশ ষ্টেশন এলাকাতেই। জানা গিয়েছে, ওই মহিলার ৫ সন্তান রয়েছে। পুলিশের কাছে জানিয়েছেন মঙ্গলবার তিনি নিজের স্বামীর সঙ্গে বাজার থেকে ফিরছিলেন। আর সেই সময় ১৭ জন তার পথ আটকে দাঁড়ায়। এও জানিয়েছেন সকলেই সেই সময় মদ্যপ ছিল। এও জানিয়েছেন তার স্বামীকে আটকে রেখে ওই মহিলাকে টানতে টানতে অন্যত্র নিয়ে গিয়েছিলেন অভিযুক্ত ১৭ জন। আর সেখানেই তাকে ধর্ষণ করে ওই ১৭ জন। নির্যাতিতা মহিলাকে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ইতিমধ্যে একজনকে গ্রেফতার করা হলেও বাকি ১৬ জনের তল্লাশি চলছে বলেও জানানো হয়েছে পুলিশের তরফে। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে এবং অভিযুক্তদের ছাড়া হবে না বলেও জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে এই বিষয়টি নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। ইতিমধ্যে রাজ্যর বিজেপি নেতা শাসক দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। বিহসয়তি নিয়ে শুরু হয়েছে বিস্তারিত তদন্ত।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।