ফাইল ছবি

উত্তরাখণ্ডঃ  সোনম কাপুরের ডলি কি ডোলি সিনেমাটার কথা মনে আছে? যেখানে একের পর এক বিয়ে করে পালিয়ে যেত নববধূ সোনম? ঠিক সেই সিনেমার চিত্রনাট্যেই যেন এই ঘটনা ঘটে গেল উত্তরাখণ্ডে৷

রুরকির কুভান হেডি গ্রামের বাসিন্দা অজয় ত্যাগির সঙ্গে বিয়ে হয় দেরাদুনের কায়া-র৷ নামটা তেমনই বলেছিল মেয়েটির বাড়ির লোকজন৷ এপর্যন্ত সবই ঠিক ছিল৷ গোলমাল ঘটল বিয়ের দুদিন পরে৷ আচমকাই নিজের আর শ্বশুরবাড়ির সবার গয়না নিয়ে চম্পট দিল বউ৷

২২ নভেম্বর বিয়ে হয় অজয় আর কায়ার৷ শুক্রবার পর্যন্ত সবকিছু স্বাভাবিক থাকলেও, সেদিনই অসুস্থ হয়ে পড়ে কায়া৷ তাকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়৷ প্রাথমিক চিকিৎসার পরে কায়াকে বাড়িতে নিয়ে আসার অনুমতি দেন ডাক্তার৷ চিকিৎসক কিছু ওষুধও দেন তাকে৷ বাড়ি ফেরার পথে নরম পানীয় খেতে চাইলে অজয় ও তার ভাই রাহুল রাস্তায় নামে তা কেনার জন্য৷ কিন্তু ফিরে আসার পর গাড়িতে আর কায়াকে পাওয়া যায়নি৷ ঘন্টা খানেকেরও বেশি সময় ধরে খোঁজাখুঁজির পরে, তারা বাড়িতে ফিরে এসে দেখে, বাড়ির কোনও মহিলারই কোনও গয়না পাওয়া যাচ্ছে না৷ শুধু তাই নয়, কায়ার নিজস্ব গয়নাগুলিও উধাও৷

অজয়ের পরিবারের অভিযোগ কায়ার সাথে ওই ডাক্তারের আগেই থেকেই প্ল্যান করা ছিল৷ সেই পরিকল্পনা মাফিকই তারা গয়না হাতিয়ে পালিয়েছে বলে মনে করছে তারা৷ যে মহিলার মাধ্যমে দুই পরিবারের আত্মীয়তা হয়, সেই মহিলাকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না৷ হরিদ্বারের নারসান পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷ পুলিশের বক্তব্য কায়ার সঙ্গে একটা চক্র কাজ করছে৷ সেই চক্রে কারা কারা রয়েছে, তা খোঁজার চেষ্টা করছে পুলিশ৷