স্টাফ রিপোর্টার, কাঁথি: শুধুমাত্র বিজেপি করার অভিযোগেই পূর্ব মেদিনীপুর জেলার খেজুরির তালপাটি উপকুল থানার সাহেবনগর গ্রামের এক মহিলাকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠল শাসক দলের নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় খেজুরি থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে পুলিশ কোনও অভিযোগ নেয়নি বলে মহিলার অভিযোগ।

এরপরেই ধর্ষিতা মহিলা সোমবার কাঁথি মহকুমা আদালতে তৃণমূলের নেতাকর্মী সহ কয়েক জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। এই ঘটনার বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, খেজুরির সাহেবনগর গ্রামের বাসিন্দা মহিলার স্বামীর নামে একটি ২০ ডেসিমল পাট্টা জমি রয়েছে। সেই জমির ওপরেই তাদের পুরানো বসত বাড়ি রয়েছে।

কিন্তু গত ৪ জুলাই দুপুরে ওই পাট্টা জমি দখল করার জন্য কয়েকজন তৃণমুল নেতা কর্মী জমিতে জমায়েত হয় বলে মহিলার অভিযোগ। ওই সময় মহিলার স্বামী ট্রলারের কাজে বাড়িতে ছিলেন না। সেই সময় কয়েকজন যুবক মহিলার ছেলেকে বেধড়ক মারধর শুরু করে। তাদের হাত থেকে ছেলেকে ছাড়াতে গেলে দুষ্কৃতীরা মহিলাকে টানতে টানতে তাঁর পুরানো বাড়ির ভিতর নিয়ে যায় এবং বেধড়ক মারধরের পর তাঁর মুখে কাপড় বেঁধে তিনজন মিলে মহিলাকে গনধর্ষন করে বলে গৃহবধুর অভিযোগ।

এরপর প্রতিবেশী ও পরিবারের লোকেরা মহিলাকে উদ্ধার করে জনকা ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভরতি করে। পরে গৃহবধু তালপাটি উপকুল থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে পুলিশ অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে। উল্টে পুলিশ জানিয়ে দেয় তদন্ত করে তারা দেখেছে অভিযোগটি সম্পূর্ণ মিথ্যে। তাই পুলিশ কোনও অভিযোগ নেয়নি। ধর্ষিতা মহিলা এরপর এলাকার তৃণমুলের পঞ্চায়েত সদস্যার স্বামী ও আরও দুজন ধর্ষণকারী সহ প্রায় দশজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

যদিও এলাকার তৃণমূল পক্ষ থেকে এই ঘটনা অস্বীকার করা হয়েছে। এই ঘটনাকে অত্যন্ত ঘৃণ্য বলে দাবী করেছেন বিজেপির কাঁথি সাংগঠনিক জেলার সভাপতি অনুপ চক্রবর্তী। তাঁর দাবী, আইনের শাসনের কঙ্কাল অবস্থা বেরিয়ে পড়েছে খেজুরিতে। তাঁর অভিযোগ, এলাকার তৃণমূলের একদল হার্মাদ খেজুরিতে তান্ডব চালাচ্ছে। এখানে আইনের শাসন ভেঙে পড়েছে।

তাঁর আরও অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ পুতুলের মতো হয়ে গিয়েছে। পুলিশের কাছে বারে বারে গিয়েও অভিযোগ নেয়নি। পুলিশের এই আচরণের বিরুদ্ধে ধিক্কার জানিয়েছেন তিনি।