স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: ‘ধর্ম মানে ধর্মান্ধতা নয়৷ ধর্ম মানে মানুষে মানুষে বিভেদ সৃষ্টি নয়৷ ধর্ম শিক্ষা-সংস্কৃতির প্রসার ঘটায়৷’ বরানগরে এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে নাম না করে বিজেপিকে আক্রমণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপধ্যায়৷

শুধু তাই নয় এদিন তাঁর অভিযোগ, পুরীর মন্দিরে ঢুকতে বাঁধা দেওয়া হয় তাঁকে৷ একদল রাজনৈতিক সমর্থক দাবি তোলে তিনি হিন্দু নন বলে৷ তবে ধর্মের ধ্বজা উড়িয়ে, হিন্দু ধর্মের জিগির তুলে যারা ধর্ম নিয়ে চিৎকার করে মমতার কথায়, ‘সেই ধর্ম ভারতের হতে পারে না৷’ কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এসবের উর্ধে৷ তিনি সকল ধর্মকে নিয়ে চলতে ভালোবাসেন বলেই এদিন দাবি করেন তিনি৷

সামনেই লোকসভা নির্বাচন৷ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের প্রতিপক্ষকে বেগ দিতে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে লড়াইয়ে নেমেছে৷ যেমন বিজেপি বাংলার প্রধান বিরোধী শক্তি হিসেবে উঠে আসা ইস্তক নারদা-সারদা-রোজভ্যালি নিয়ে বাংলার শাসকদলকে বেগ দিয়ে চলেছে৷ ঠিক তেমনই আবার কেন্দ্রে মোদী সরকারের রাফাল কেলেঙ্কারি নিয়ে সরব মহাজোটের সব রাজনৈতিক দল৷ তেমনই মমতার সরকার রাজ্যে বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হয়েছে ধর্মকে প্রধান ইস্যু করে৷

অভিযোগ, বিজেপি যেভাবে হিন্দু ধর্ম নিয়ে মাতামাতি শুরু করেছে তাতে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা অবসম্ভাবী৷ কিছুদিন আগেও বিজেপির বিরুদ্ধে তৃণমূলের অভিযোগ ছিল, তারা নাকি ছেলেধরা গুজব রটাচ্ছে৷ পাড়ায় পাড়ায় বোরখা পড়ে ছেলেধরা গুজব রটিয়ে দাঙ্গা বাধানোর খেলায় মেতেছে বিজেপি৷ বেহালায় এই ধরণের অশান্তিরও খবর মেলে৷ আর এদিনও ঠিক একই ইস্যুতে নাম না করে বিজেপিকে ফের আক্রমণ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা৷

এদিন তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘এই ধর্ম ভারতের হতে পারে না৷ এখন মনে হয় রাজনীতি না করলেই বোধহয় ভালো হত৷ ধর্মের নাম করে যেভাবে দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা শুরু হয়েছে তাতে আমি আতঙ্কিত৷’ শুধু তাই নয়, এদিন তিনি আরো বলেন, ‘এতদিন ভারতবর্ষে থেকে যদি পরিচয়ে দিয়ে বলতে হয় আমি ভারতবাসী এর থেকে দুঃখের কিছু নেই৷ এতদিন রাজনীতি করে যদি আমাকে পরিচয় দিতে হয় তার থেকে আক্ষেপের কিছু হয় না৷’

বরানগরে অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে এদিন ধর্মক্ষেত্রে বাংলার উন্নয়ন প্রকল্পগুলিও তুলে ধরেন জনসমক্ষে৷ তাঁর কথায়, ‘দক্ষিণেশ্বরের স্কাইওয়াক সকলের গর্ব৷ ধর্মক্ষেত্রে যেখানে যা প্রয়োজন আমরা করেছি সাধ্যমত৷ আরও কিছু প্রকল্পের কাজ চলছে৷’

তবে এদিন মমতা বিজেপিকে আক্রমণ করে, বাংলার সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পগুলি তুলে ধরে আদপে লোকসভার নির্বাচনী প্রচার সারলেন বলেই মত রাজনৈতিক মহলের একাংশের৷