কলকাতা: করোনার সঙ্গী হয়ে কলকাতাকে দিনকয়েক আগে কার্যত তছনছ করে দিয়ে গিয়েছে সুপার সাইক্লোন ‘আমফান’। প্রচুর সম্পত্তি নষ্টের পাশাপাশি আমফানের প্রভাবে গৃহহীন, আশ্রয়হীন হয়েছেন বহু। বিপর্যস্ত কলকাতার পাশে দাঁড়িয়ে মীর ফাউন্ডেশনের সঙ্গে যৌথভাবে একাধিক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে আইপিএলে কলকাতা ফ্র্যাঞ্চাইজি। এর আগে করোনা বিধ্বস্ত বাংলার পাশে দাঁড়িয়েও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন দরদী কিং খান এবং কেকেআর ফ্র্যাঞ্চাইজি।

মালিকের পর এবার আমফান বিধ্বস্ত বাংলার পাশে দাঁড়িয়ে বিশেষ বার্তা দিলেন কেকেআর অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক। আইপিএল ট্রফিটা উপহার দেওয়ার মধ্যে দিয়ে আমফান বিধ্বস্ত কলকাতার পাশে দাঁড়াতে পারি। এই বার্তাতেই দলের ক্রিকেটারদের মোটিভেট করছেন ডিকে। কার্তিক বলছেন, ‘কলকাতার সঙ্গে নাইট ক্রিকেটাদের নিঃসন্দেহে আবেগ জড়িয়ে রয়েছে। সমর্থকরা আমাদের উপর ভীষণ গর্বিত। কিন্তু গত কয়েকটা মাসে রাজ্যটার উপর দিয়ে অনেককিছু বয়ে গিয়েছে। তাই আইপিএল জয়ের মধ্যে দিয়েই আমরা রাজ্যের পাশে দাঁড়াতে চাই।’

একইসঙ্গে আইপিলের ভবিষ্যৎ নিয়ে নাইট অধিনায়ক জানিয়েছেন, ‘আমরা এখনও জানি না আইপিএল চলতি বছর হবে কীনা। একটা কেন্দ্রে খেলা হবে নাকি হোম-অ্যাওয়ে ভিত্তিতেই খেলা হবে। তবে যখনই হোক না কেন শিশির ফ্যাক্টর একটা বড় কাজ করবে। এপ্রিল-মে মাসেও আমাদের একই বিষয় ফেস করতে হয়।’

অধিনায়ক ছাড়াও বৃহস্পতিবার এক ভিডিওবার্তার মাধ্যমে আমফান বিধ্বস্ত করোনার পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দিয়েছেন নাইট পেসার প্যাট কামিন্স, চায়নাম্যান কুলদীপ যাদব, ইয়ন মর্গ্যান এবং তরুণ শুভমন গিল।

এদিকে, পূর্ণাঙ্গ আইপিএল আয়োজনের বার্তা দিয়ে সুর চড়িয়েছেন কেকেআর সিইও বেঙ্কি মাইসোর। কেকেআর সিইও’র জানিয়েছেন, ‘আমাদের কাছে যে প্রোডাক্টটা রয়েছে তার কোয়ালিটিই ওটাকে ভীষণ স্পেশাল বানিয়েছে। তাই আমার মতে টুর্নামেন্টটা পুরোদমে আয়োজন করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। ম্যাচ সংখ্যা একই রেখে, দেশি-বিদেশি ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণেই আয়োজন করা হোক আইপিএল।’ অন্যান্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোও ‘কমপ্লিট’ আইপিএল আয়োজনের পক্ষে বলেই জানিয়েছেন বেঙ্কি।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ