ইসলামাবাদ: ভারতের বিরুদ্ধে আবারও জঘন্য ‘প্রচারের’ আশ্রয় নিল পাকিস্তান। সম্প্রতি করাচির পাকিস্তানের যুদ্ধ মিউজিয়ামে ভারতীয় বায়ু সেনার উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমানের একটি ম্যানিকুইন প্রকাশ করেছে ইসলামাবাদ। আর এই ম্যানিকুইন ঘিরে শুরু হয়েছে সমালোচনা।

কিছুদিন আগে পাক সাংবাদিক তথা রাজনীতিবিদ আনোয়ার লোদি টুইটারে অভিনন্দনের এই ম্যানিকুইনের ছবি সামনে আনেন। এই ছবি পোস্ট করে তিনি লেখেন, ‘পিএএফ(পাক বায়ু সেনা) অভিনন্দন বর্তমানের মূর্তি জাদুঘরে রেখেছে। এর সঙ্গে একটা চায়ের কাপ মূর্তিটার হাতে থাকলে অসাধারণ হত।’

প্রসঙ্গত, অভিনন্দনকে আটক করার পরে পাক সেনাবাহিনী একটি ভিডিও প্রকাশ করে। যেখানে, অভিনন্দনকে চা দিয়ে তা কেমন জানতে চান পাক সেনাপ্রধান। জবাবে অভিনন্দন বলেন ‘অসাধারণ’। এই ঘটনার রেশ ধরেই টুইট করেন আনোয়ার।

চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে পুলওয়ামা হামলার জবাবে ২৭ ফেব্রুয়ারি পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোটে জঙ্গিঘাঁটি লক্ষ্য করে অভিযান চালায় ভারতীয় সেনাবাহিনী। আর এর পরেই ভারতীয় বায়ুসীমায় ঢুকে হামলা চালাতে আসে পাক যুদ্ধবিমান। একটি পাক এফ-১৬ বিমানকে তাড়া করেন মিগ-২১ বাইসনে থাকা অভিনন্দন। আকাশে অনেকক্ষণ ‘লুকোচুরি’ খেলার পরে এক সময়ে পাক বিমানকে ধ্বংস করে দেন অভিনন্দন। কিন্তু, পাক সেনার গুলিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় অভিনন্দনের বিমানও।

সঠিক সময়ে বিমান থেকে নিজেকে ‘ইজেক্ট’ করলেও পাক ভূখণ্ডে চলে যান অভিনন্দন। পাক বাহিনীর হাতে বন্দি হন। কূটনৈতিক দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে সাউথ ব্লক এবং ইসলামাবাদ। অবশেষে ১ মার্চ ভারত-পাক সীমান্তের ওয়াঘা-আটারি-তে অভিনন্দনকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাতে প্রত্যার্পণ করে পাক সেনা। পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এই ঘটনাকে ‘শান্তির বার্তা’ হিসাবে তুলে ধরেছিলেন।

কিন্তু, ওয়াঘার ওপার থেকে বারবার জঘন্য ভাবে তুলে ধরা হয়েছে অভিনন্দন প্রসঙ্গ। চলতি বছরে বিশ্বকাপ চলাকালীনও ভারতের এই উইং কম্যান্ডারের নকল করে বিজ্ঞাপন দিয়েছিল পাকিস্তান। প্রবল সমালোচনার ঝড়ও ওঠে। ঠিক একই ভাবে এই টুইট সামনে আসার পর থেকেই সমালোচনার ঝড় বয়ে গিয়েছে নেট দুনিয়ায়।