অকল্যান্ড: খেলার মাঠে চাপের কথা আমরা প্রতিনিয়তই শুনে থাকি। কিন্তু মহামারী COVID-19’র সঙ্গে এই মুহূর্তে লড়াই চালাচ্ছেন যে সকল চিকিৎসক কিংবা স্বাস্থ্যকর্মীরা, তারাই বুঝতে পারছেন চাপের আসল অর্থ কী। মানুষের জীবন বাঁচানোর মতো সবচেয়ে চাপের এবং ঝুঁকিপূর্ণ কাজটা এখন তারাই করছেন। দেশের স্বাস্থ্যকর্মী, চিকিৎসকদের কুর্নিশ জানিয়ে এমনই এক খোলা চিঠি লিখলেন নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন।

সারা বিশ্বে ২১ হাজারেরও বেশি প্রাণ কেড়েছে নোভেল করোনা ভাইরাস। নিউজিল্যান্ডে মারণ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২৫০ পেরোলেও এখনও অবধি কোনও মৃত্যুর খবর এসে পৌঁছয়নি। নিজেদের জীবনকে বাজি রেখে আক্রান্তদের সেবায় নিয়োজির দেশের সকল চিকিৎসক ও স্বাস্থকর্মীদের জন্য এবার কলম ধরলেন কেন।

নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডে কিউয়ি অধিনায়ক লিখেছেন, ‘গত কয়েকদিনের ঘটনায় স্পষ্ট এই মুহূর্তে দেশ যে স্বাস্থ্য সংকটের মধ্যে যাচ্ছে এমনটা আগে কখনও ঘটেনি। নিশ্চিত আগামিদিনগুলোতে অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাবে। এমন সময় আমরা আপনাদের কাছে কৃতজ্ঞ। মানুষ বলে খেলোয়াড়রা নাকি চাপের মুখে নিজেদের মেলে ধরে। আসল কথা হল আমরা রোজ সেটাই করি যা আমরা ভালোবাসি। আমরা একটা খেলায় অংশ নিই।’

‘কিন্তু আসল চাপ তো তারাই নেন যাদের উপর গুরুদায়িত্ব মানুষের জীবন বাঁচানোর। আসল চাপ তো নিজের জীবনকে অন্ধকারে রেখে অন্যের সেবায় নিয়োজিত হওয়া।’ জানিয়েছেন কেন। দেশের স্বাস্থ্যকর্মীদের উদ্দেশ্যে কিউয়ি অধিনায়ক আরও জানিয়েছেন, তোমরা সবসময় জানবে গোটা দেশ তোমাদের সঙ্গে রয়েছে। স্বাস্থ্যকর্মীদের কুর্নিশ জানিয়ে হেরাল্ডে উইলিয়ামসন আরও লিখেছেন, ‘এটা সাঙ্ঘাতিক দায়িত্বপূর্ণ একটা কাজ যা কেবল সমাজের সেরা মানুষদের দ্বারাই সম্ভব হয়। পাশে থেকে তোমাদের সমর্থন জুগিয়ে যাওয়াটাও একটা দারুণ অনুভূতি।’

উল্লেখ্য, ঠান্ডা মাথার অধিনায়ক উইলিয়ামসনের নেতৃত্বেই ২০১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে পৌঁছেছিল টিম নিউজিল্যান্ড। নির্ধারিত ওভারের পর সুপার ওভারও টাই হওয়ায় বাউন্ডারি হাঁকানোর নিরিখে বিশ্বচ্যাম্পিয়নের স্বাদ পায় ইংল্যান্ড। কিন্তু হৃদয় জিতে নেন অধিনায়ক উইলিয়ামসন ও তাঁর দলের নাছোড় লড়াই। টুর্নামেন্টের সেরাও হয়েছিলেন কিউয়ি অধিনায়ক।