নয়াদিল্লি: সেনা অভিযানের জন্যও কি কমিশনের অনুমতি নিতে হবে? এভাবেই নির্বাচন কমিশনকে কটাক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, জঙ্গিদের মারার আগেও কি কমিশনের অনুমতি নিয়ে যেতে হবে?

রবিবার উত্তরপ্রদেশের এক জনসভায় গিয়ে তিনি একথা বলেন। নির্বাচন কমিশনকে উদ্ধৃত করে তোপ দাগেন প্রধানমন্ত্রী।

রবিবার সকালেই সোপিয়ানে ২ জঙ্গি নিকেশ করে সেনা। দক্ষিণ কাশ্মীরে টহলদারি চালাচ্ছিল সেনাবাহিনী। সে সময়ই গুলির লড়াই চলে জঙ্গি-সেনার। সেখান থেকে প্রচুর গোলা-বারুদ উদ্ধার হয় বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, গত ৬ মে-র মধ্যে ভোটগ্রহণ শেষ হয়ে যায় জম্মু-কাশ্মীরের ৬ টি আসনে।

উত্তর প্রদেশের কুশীনগরে নির্বাচনী সভায় নরেন্দ্র মোদী বলেন, ‘জওয়ানদের সামনে বোমা ও বন্দুক নিয়ে জঙ্গিরা দাঁড়িয়ে থাকলে, তাদের মারতে কমিশনের কাছে অনুমতি নিতে যেতে হবে?’ এ দিনও নির্বাচনী মঞ্চে সেনা নিয়ে জোর প্রচার চালান মোদী।

উল্লেখ্য, সেনা নিয়ে নির্বাচনে প্রচার চালানোয় নিষেধাজ্ঞা করেছিল কমিশন। বিরোধীদের অভিযোগ, জওয়ানদের নিয়ে রাজনীতি করছেন প্রধানমন্ত্রী। আচরণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে কমিশনের দ্বারস্থ হন তাঁরা। যদিও প্রধানমন্ত্রীকে ক্লিনচিট দেয় কমিশন।