নয়াদিল্লি: তাহলে কী কোনওদিনই বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন না রশিদ খান। আফগানিস্তান অল-রাউন্ডারের কাছে অনুরাগীদের এখন এটাই জিজ্ঞাস্য। কিন্তু হঠাৎ বিশ্বের পয়লা নম্বর টি২০ বোলারের কাছে এমন প্রশ্ন ছুঁড়ে দেওয়ার মানে কী? ঘটনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে খোদ রোশিদ খানেরই রকটি বক্তব্য। আর তার পরিপ্রেক্ষিতেই এমন প্রশ্ন অনুরাগীদের।

কবে বিয়ে করবেন তিনি? সম্প্রতি স্থানীয় একটি রেডিও চ্যানেল আজাদি রেডিও’তে আফগান অল-রাউন্ডারের কাছে এমনই ব্যক্তিগত প্রশ্ন রাখা হয়েছিল। উত্তরে পয়লা নম্বর টি২০ বোলার বলেন, ‘আফগানিস্তান বিশ্বকাপ জিতলে তবেই তিনি এনগেজমেন্ট সারবেন এবং বিয়ে করবেন।’

এরপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় মজার ছলে অনুরাগীরা সানরাইজার্স হায়দরাবাদ লেগ-স্পিনারের কাছে জানতে চেয়েছেন, তাহলে কী আপনি বিয়ে থেকে পালাতে চাইছেন? কারণটা খুবই পরিষ্কার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ‘দুধের শিশু’ তকমা ঘুচিয়ে ধীরে-ধীরে শক্তিধর ক্রিকেট রাষ্ট্রে পরিণত হলেও প্রথম সারির ক্রিকেট রাষ্ট্রগুলোকে টেক্কা দিয়ে বিশ্বসেরা হওয়ার মতো রসদ এখনও জোগাড় করতে পারেনি আফগানিস্তান।

মহম্মদ নবি, রশিদ খানের মতো ক্রিকেটার সেদেশে তৈরি হলেও দল হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের মতো অবস্থায় যে আফগানিস্তান পৌঁছতে পারেনি, সেকথা জানা অনুরাগীদের। আর সেকারণেই আফগান স্পিনারকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয়েছে মশকরা।

এযাবৎ দু’টি ৫০ ওভার এবং ৪টি টি২০ বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছে আফগানিস্তান। তবে বড়সড় কোনও প্রভাব ফেলতে ব্যর্থ তারা। যার মধ্যে রশিদ খান অংশ নিয়েছেন একটি ৫০ ওভার এবং একটি টি২০ বিশ্বকাপে। উল্লেখ্য, ২০১৫ এবং ২০১৯ বিশ্বকাপে (৫০) গ্রুপ পর্বের বাধা পেরোতেই ব্যর্থ হয় রশিদ খানের দেশ।

২০১৫ বিশ্বকাপে কেবল স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে জয় পেয়েছিল তারা কিন্তু ২০১৯ বিশ্বকাপে সবক’টি ম্যাচই হারতে হয় আফগানিস্তানকে। হেড কোচ ল্যান্স ক্লুজনারের প্রশিক্ষণে আগামীতে বিশ্বকাপে নিজেদের পারফরম্যান্সের উন্নতি ঘটাতে বদ্ধপরিকর। কিন্তু রশিদের এত সহজে বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্নকে ‘অলীক স্বপ্ন’ বলেই মনে করছেন অনুরাগীরা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ