স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কংগ্রেসকে ভোট দেওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে স্ত্রীয়ের মুখে অ্যাসিড ঢালার অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূল সমর্থক স্বামীর বিরুদ্ধে৷ ৭২ ঘন্টা কেটে গেলেও অভিযুক্ত ব্যক্তি এখনও অধরা৷ সেই ক্ষোভ জানাতে শনিবার নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছেন প্রদেশ কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য৷
অভিযুক্ত তাহাসেন শেখকে গ্রেফতারের দাবি জানাবেন তিনি৷

মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল রাজ্যের পাঁচ কেন্দ্রে নির্বাচন ছিল৷ এই পাঁচ কেন্দ্রের মধ্যে ছিল বালুরঘাট লোকসভার নির্বাচন৷ সেদিনই দুপুরে বালুরঘাট লোকসভার অন্তর্গত ইসলামপুরে এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে৷ অভিযোগ, কেশবপুর এলাকার বাসিন্দা আনসুরা বিবি ভোট দিয়ে ফিরতেই তাঁর স্বামী তাহাসেন শেখ তাঁকে জানতে চায়, তিনি কাকে ভোট দিয়েছেন৷

আনসুরা বিবি জবাব দিয়েছিলেন, ‘‘কেন গো, ভাইয়ের দল কংগ্রেসকেই দিলাম এ বার।’’ উল্লেখ্য আনসুরার দাদা মইনুদ্দিন শেখ গ্রামের পরিচিত একজন কংগ্রেস নেতা।আর তার পরই, তাঁর স্বামী, তৃণমূল সমর্থক তাহাসেন শেখ এবং পরিবারের অন্যরা আনসুরাকে বেধড়ক পিটিয়ে মুখে অ্যসিড ঢেলে দেয় বলে অভিযোগ। পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগে এমনই জানিয়েছে আনসুরার ছেলে রুপসান শেখ।

মঙ্গলবার দুপুরে ওই ঘটনার পরে, আশঙ্কজনক অবস্থায় আনসুরাকে ভর্তি করানো ইসলামপুর গ্রামীণ হাসপাতালে। অবস্থার ক্রমশ অবনতি ঘটলে ওই দিন রাতে তাঁকে পাঠানো হয় বহরমপুরের মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, মহিলার শ্বাসনালি ক্ষতবিক্ষত হয়ে গিয়েছে।

মইনুদ্দিন বলছেন, ‘‘দিদি বাড়ি ফেরার পরেই শুরু হয়েছিল অত্যাচার। প্রথমে মার, তার পর চেপে ধরে ওর মুখে অ্যসিড ঢেলে দেওয়া হয়।’’ তবে, তাহাসেন বলছেন, ‘‘এটা আমাদের স্বামী-স্ত্রীর রাগারাগির ঘটনা। আমি ওঁকে দু’টো চড় মেরেছি বলেই ও অ্যাসিড খেয়েছে।’’

এই ঘটনার পর তাহাসেনকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানায় জেলা কংগ্রেস৷ কিন্তু ৭২ ঘন্টা কেটে যাওয়ার পরও অভিযুক্ত গ্রেফতার না হওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রদেশ কংগ্রেস৷দলের বর্ষীয়ান নেতা তথা রাজ্যসভার সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য বলেন, ‘‘নিজের পছন্দমতো ভোট দেওয়ার অধিকার সকলের রয়েছে৷ ভারতের সংবিধানে কোথাও বলা নেই স্বামীর পছন্দের প্রার্থীকে স্ত্রীকে ভোট দিতে হবে৷যে ঘটনা ঘটেছে সেটা গুরুতর অপরাধ৷ শাসক দলের ছত্রছায়ায় থাকায় জন্যেই কি অভিযুক্তকে কেন এখনও গ্রেফতার হল না-এই প্রশ্নের জবাব আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে চাইব৷’’