স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: অবশেষে গঙ্গায় ঝাঁপ দেওয়া বৃদ্ধ দম্পতির পরিচয় উদ্ধার করল পুলিশ৷ পুলিশ জানিয়েছে, ওই দম্পতির নাম পীযুষ মজুমদার (৭৮) ও জোৎস্না মজুমদার (৭০)। উত্তর ২৪ পরগণার  তেঘরিয়ায় বাড়ি থাকলেও তাঁরা দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুরে ছেলের বাড়িতে থাকতেন। পরিচয় জানা গেলেও ঠিক কি কারনে ওই দম্পতি আত্মঘাতী হলেন, তা এখনও স্পষ্ট নয় পুলিশের কাছে৷

আরও পড়ুন: নেটজালে জড়িয়ে বাংলা দখলের তথ্যচিত্র বিজেপি’র

হাওড়া জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই বৃদ্ধা কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর পুলিশকে তাঁদের পরিচয় জানান৷ ওই সূত্র ধরেই খোঁজখবর শুরু করে পুলিশ। এরপরই বৃদ্ধ দম্পতির ছেলেকে ডেকে পাঠানো হয় হাওড়া থানায়। ঠিক কি কারনে ওই দম্পতি আত্মঘাতী হলেন তা অবশ্য এখনও স্পষ্ট নয় পুলিশের কাছে৷ তাঁদের পরিজনেরাও এবিষয়ে পুলিশকে নির্দিষ্ট করে কিছু জানাতে পারেনি৷

আরও পড়ুন: অমিত শাহের সঙ্গে এক মঞ্চে দেখা যেতে পারে মমতা ঘনিষ্ঠ শিল্পপতিদের

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন ওই দম্পতি। আর বাড়ি ফেরেননি। পীযুষবাবুর পকেট থেকে একটি মোবাইল ফোন, গড়িয়া-বাগবাজার রুটের সরকারি বাসের টিকিট ও কিছু টাকাপয়সা উদ্ধার হয়েছিল। এদের উপর কোনও পারিবারিক নির্যাতন করা হত কিনা তা জানার জন্য পুলিশ সোনারপুরে স্থানীয় থানার সাহায্য নিতে পারে। এদিকে, জোৎস্নাদেবীর অবস্থাও আশঙ্কাজনক। হাওড়া জেলা হাসপাতালে এই মুহুর্তে ভেন্টিলেশনে আছেন তিনি।

আরও পড়ুন: লক্ষ্য লোকসভা: নয়াদিল্লির ভারী মাথা এনে বাংলা দখলের ছক বিজেপির

শনিবার বাগবাজার থেকে হাওড়ামুখী লঞ্চে ঘটনাটি ঘটে। এরা আচমকাই নদীতে ঝাঁপ দেন। জলপথ পরিবহন সমিতির কর্মী জয়দেব হালদার এদের দ্রুত উদ্ধার করে লঞ্চে তোলেন। হাওড়ার ১ নম্বর ফেরিঘাটে আনা হয়। সেখান থেকে হাওড়া জেলা হাসপাতালে এদের আনা হলে পীযুষবাবুকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়৷