কলকাতা: বিজেপি ও সিপিএম যে এক হয়ে গিয়েছে, এমন দাবিতে অনেকবারই সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাম এবং বাম মিলে তৃণমূলের কর্মীদের উপরে অত্যাচার করছে বলেও ২১শে জুলাইয়ের প্রতিবাদ মঞ্চ থেকে জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রী সিপিএমের কোন নেতার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না নেওয়ার জন্য দু’পক্ষের মধ্যে একটা আঁতাত রয়েছে বলে অভিযোগ তোলেন৷ সকলে নিয়ে দেশকে চালাতে হবে এভাবে দুর্যোধন এবং দুঃশাসনের নীতিতে দেশ চালালো যায় না বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি জানান, আইন সকলের জন্যই সমান, অপরাধ করলে অপরাধীর শাস্তি প্রাপ্য। কিন্তু তা সত্ত্বেও সিপিএমের কোন নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতি বা চিট ফান্ড সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কোন সমন না পাঠানোর কারণ স্বভাবতই ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য, সব বিরোধী দলগুলিকেই নিশানা করা হচ্ছে, সেই কারনেই প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম কে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুধুমাত্র সিপিএমের নেতাদেরই ছাড় দেওয়া হচ্ছে যা দেখে মনে হচ্ছে লাল ও গেরুয়া এক হয়েই এই কাজ করছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বাম শাসন চলাকালীন, পশ্চিমবঙ্গে সব চিটফান্ডের কার্যকলাপ শুরু হয় আর ২০১১ তে ক্ষমতায় আসার পর থেকে তৃণমূল চিট ফান্ডের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।
২০১৩ সালে সারদা প্রধান সুদীপ্ত সেন কে গ্রেফতার করা হয়। তারপর থেকেই চিট ফান্ডের লুট করা অর্থ সাধারন মানুষদের ফিরিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। পরে যখন সিবিআই এই কেস নিয়ে তদন্ত শুরু করে কোন বাম নেতাকেই সিবিআই দফতরে ডাকা হয় নি এবং গ্রেফতার ও করা হয় নি। যা নিয়ে সরব হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

যদিও বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী তাঁর এই মন্তব্যের প্রতিবাদ করেন তৃণমূল নেতাদের চিটফান্ডের জন্য গ্রেফতার করার প্রেক্ষিতে ৷

দেশের বর্তমান পরিবেশ নিয়েও মুখ্যমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন, দুর্যোধন এবং দুঃসাশনের মতো ভাগ করার নীতি নিয়ে শাসন চালাচ্ছে বর্তমান সরকার যা দেশের ঐতিহ্যর বিরোধী।