মুম্বই: সোনা এবং রুপো দুটোই দামি ধাতু। গত এক বছরে সোনার দাম ৩২ শতাংশ বৃদ্ধি পেলেও রুপোর দাম বেড়েছে ৪৩ শতাংশ। অর্থাৎ সেভাবে দাম বৃদ্ধির দিক থেকে সোনাকে টেক্কা দিয়েছে রুপো। তবে সব সময় মাথায় রাখতে হবে এই অনিশ্চিত সময় কোন নির্দিষ্ট সম্পদে সমস্ত বিনিয়োগ করা উচিত নয়।

বরং লগ্নির অর্থ বিভিন্ন ধরনের সম্পদে বিনিয়োগ করা উচিত যাতে ভবিষ্যৎ ঝুঁকিটা কমিয়ে আনা যায়। এই কথা মাথায় রেখে এবার একটা তুলনা করে দেখা যাক এই দুই ধাতুকে কার ভবিষ্যৎ বেশি উজ্জ্বল।

১) প্রাথমিকভাবে রুপোর ভূমিকা রয়েছে শিল্পক্ষেত্রে এবং অর্থকরী দিকে এর গুরুত্ব কম। অন্যদিকে সোনা পুরোপুরি অর্থকরী সম্পদ।

২) শিল্পক্ষেত্রে ব্যবহারের সঙ্গে রুপো্য সম্পর্ক থাকায় অর্থনৈতিক বৃদ্ধির সঙ্গে এর একটা সম্পর্ক রয়েছে। সে দিক দিয়ে বলা চলে অর্থনৈতিক দিক থেকে খারাপ সময় অর্থাৎ বৃদ্ধির বদলে সংকোচনের সময় বা অনিশ্চিত সময় সোনার গুরুত্ব বাড়ে।

৩) নগদে রূপান্তরিত করার ক্ষেত্রে রুপোর চেয়ে সোনার গুরুত্ব বেশি। লগ্নি এবং অলংকারের ব্যবহারের জন্য রুপোর তুলনায় সোনা সহজে নগদে পরিণত করা সম্ভব।

৪) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সম্পদের ক্ষেত্রে সোনাকে রাখা হয় কিন্তু রুপোকে রাখা হয় না।

৫) রুপোর তুলনায় সোনা সহজে বিনিয়োগ করা যায় ধাতু ছাড়াও অন্যান্য সম্পদে যেমন ইটিএফ, মিউচুয়াল ফান্ড , বন্ড ইত্যাদি।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।