ফাইল ছবি

কলকাতা: শহর কলকাতায় এক ধাক্কায় করোনা রোগীর সংখ্যা বেশ খানিকটা বেড়ে যাওয়ার ব্যাখ্যা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গোটা রাজ্যের মধ্যে মহানগরীতেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক। প্রতিদিন হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। রবিবারের স্বাস্থ্য দফরের বুলেটিন অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত কলকাতায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ হাজারেরও বেশি।

পড়ুন আরও- প্রবল বিস্ফোরণ, কালো ধোঁয়াতে ঢাকল গোটা আকাশ

কলকাতায় করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি হওয়া নিয়ে সোমবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে ব্যাখ্যা গিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর কথায়, ‘কলকাতায় করোনা রোগীর সংখ্যা বেশি দেখানো হচ্ছে। কলকাতার হাসপাতালগুলিতে জেলার রোগীরাও ভরতি হচ্ছেন। কলকাতার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার দরুণ রেকর্ডটা কলকাতার বলে দেখানো হচ্ছে।’

এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ, বাঙুর-সহ অন্য হাসপাতালগুলিতে শুধু কলকাতার রোগীরাই ভরতি হচ্ছেন না। জেলা থেকে বহু রোগী ভর্তি হচ্ছেন। কলকাতা লাগোয়া হাওড়া হাসপাতালেও একই ঘটনা ঘটছে। জেলার রোগী করোনা আক্রান্ত হলেও সেটা কলকাতার বলে দেখানো হচ্ছে।’

পড়ুন আরও- রেলযাত্রীদের জন্য সুখবর, বড়সড় সিদ্ধান্ত ভারতীয় রেলের

এছাড়াও সোমবার নবান্নে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সাধারণ রোগ-ব্যধির চিকিৎসায় বর্তমান পরিস্থিতিতে আমজনতার দুর্ভোগ কমাতে তৎপর রাজ্য সরকার।

টেলি মেডিসিন প্রক্রিয়া শুরু করতে চলেছে রাজ্য সরকার। সবকিছু ঠিকঠাক চললে আগামী বুধবার ডক্টরস ডে থেকেই এই পরিষেবা চালু হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কলকাতা ও জেলায়-জেলায় এই পরিষেবা ধাপে ধাপে চালু করা হবে। নির্দিষ্ট নম্বরে ফোন করে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যার কথা জানালে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেবেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।