নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাবা ও মাকে টেনে তাঁকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করায় কংগ্রেস নেতাদের একহাত নিলেন অরুণ জেটলি৷ প্রতিপক্ষ শিবিরকে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর কটাক্ষ, কংগ্রেস নেতারা পলিটিক্যাল ব্র্যান্ড বলতে ওজনদার পদবীকে বোঝে৷ ওজনদার পদবী বলতে সুকৌশলে তিনি গান্ধী ও নেহরু পদবীকে বুঝিয়ে দিয়েছেন বলে মত রাজনৈতিক মহলের৷

ফেসবুকে কংগ্রেস নেতাদের একাংশের এই মানসিকতা নিয়ে তোপ দাগেন জেটলি৷ লেখেন, ‘‘লক্ষ লক্ষ দক্ষ রাজনৈতিক নেতা মধ্যবিত্ত সমাজ থেকে উঠে আসে৷ কিন্তু কংগ্রেস শুধুমাত্র পদবী দিয়েই নেতাদের যোগ্যতা বিচার করে৷ তারা পলিটিক্যাল ব্র্যান্ড বলতে ওজনদার পদবী বোঝে৷’’ এরপরই তিনি কংগ্রেস নেতাদের উদ্দেশে তিনটি প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন৷ জানতে চান, মহাত্মা গান্ধীর বাবা, সর্দার প্যাটেলের বাবা ও স্ত্রীর নাম কী?

আসলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর এই ফেসবুক পোস্ট কংগ্রেস নেতা বিলাসরাও মুট্টেমওয়ারের একটি মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে করা৷ দিন কয়েক আগে রাজস্থানে নির্বাচনী প্রচারে তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পরিবারের সঙ্গে রাহুল গান্ধীর পরিবারের তুলনা করেন৷ বলেছিলেন, রাহুল গান্ধীর পরিবারকে সকলে চেনে৷ কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর বাবাকে ক’জন চেনে৷

বিলাসরাওয়ের এই মন্তব্য বিতর্ক উস্কে দেয়৷ তার আগে মধ্যপ্রদেশে নির্বাচনী প্রচারে নরেন্দ্র মোদীর মায়ের বয়সের সঙ্গে টাকার অবমূল্যায়নের তুলনা করেছিলেন রাজ বব্বর৷ জানিয়েছিলেন, টাকার দর মোদীর মায়ের বয়স ছুঁইছুঁই৷

জবাব দেন মোদীও৷ কংগ্রেস নেতারা যেভাবে নির্বাচনী প্রচারে তাঁর বাবা-মা’কে টেনে এনে কুরুচিকর আক্রমণ করেছে সেই নিয়ে মুখ খোলেন মোদী৷ নিজস্ব ঢঙে জানান, উন্নয়ন নিয়ে কথা বলার মুখ নেই, তাই বাবা-মা’কে টেনে এনে তাঁকে আক্রমণ করছে কংগ্রেস৷ আর কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী সেই সব নেতাদের হয়ে সাফাই গাইছেন৷

মধ্যপ্রদেশের বিদিশাতে নির্বাচনী সভায় মোদী বলেন, ‘‘দু’দিন আগে ওরা একটি ব়্যালিতে আমার মা’কে টেনে এনে আক্রমণ করেছিল৷ আজ সোশ্যাল মিডিয়া থেকে জানতে পারলাম ওরা আমার বাবাকেও টেনে এনেছে৷ তিনি ৩০ বছর আগে মারা যান৷ আমার বাবা ও মা কোনদিনও রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না৷ তাঁরা রাজনীতির র পর্যন্ত জানেন না৷ আমরা কখন কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করি না৷ শুধু পদটাকে আক্রমণ করি৷ কিন্তু কংগ্রেস নেতারা আমাকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেই চলেছে৷’’

1 COMMENT

Comments are closed.