জেনেভা: COVID-19 মোকাবিলায় বিশ্বের বহু দেশ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে হঠাতই হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল বন্ধ করা হয়েছে, এমনটাই জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)।

বিশ্বের অন্যতম মেডিক্যাল জার্নাল ‘ল্যানসেট’ গতসপ্তাহে একটি সমীক্ষায় জানিয়েছে, অ্যান্টি-ম্যালেরিয়াল এই ওষুধ ব্যবহারে কোভিড-১৯ রোগীদের মৃত্যুর সম্ভাবনা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। এমন তথ্য প্রকাশিত হওয়ার পরের সপ্তাহে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে হু, এমনটাই জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেডরোস।

টেডরস জানিয়েছে, করোনা ভাইরাসের সম্ভ্যাব্য চিকিৎসার খোঁজে ‘সলিডারিটি ট্রায়ালে’র জন্য বিশ্বের একাধিক দেশের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের নাম নথিভূক্ত করা হয়েছিল। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবেই তা বন্ধ করা হয়েছে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। অন্যক্ষেত্রে তা চলছে বলেও জানান হয়েছে সংস্থার তরফে।

হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন সাধারণত আর্থারাইটিসের জন্য ব্যবহার হয়ে থাকে তবে কিছু জনপ্রতিনিধি যাদের মধ্যে রয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত সপ্তাহেই তিনি জানিয়েছিলেন, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খেয়ে তিনি ভালো আছেন। যার ফলে একবারে অনেক কেনার ছবি সামনে এসেছে।

শুধু তাই নয়, ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের পাশাপাশি অ্যান্টি-ম্যালেরিয়াল ক্লোরোকুইনও অল্প করোনা আক্রান্তদের ক্ষেত্রে ব্যবহারের উপদেশ দিয়েছেন।

মেডিক্যাল জার্নাল ‘ল্যানসেট একটি সমীক্ষায় জানিয়েছে, এই দুই ওষুধেই বিশেষভাবে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াযুক্ত। বিশেষ করে হৃদরোগের সমস্যা আসতে পারে বলেই জানা গিয়েছে।

পাশাপাশি করোনা ভাইরাসের জন্য যারা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তাঁদের এদের মধ্যে কোনও ওষুধই সাহায্য করেনি। একশ’র বেশি হাসপাতালে প্রায় ৯৬ হাজারের বেশি রোগীকে লক্ষ্য করে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এই ট্রায়ালে অংশ নিয়েছিল মোট দশটি দেশ। আলোচনায় আরও একবার উঠে আসে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যেসব করোনা রোগীর শরীরে এই ওষুধ প্রয়োগ করা হয়েছিল, তাদের মৃত্যুর হার অন্যদের তুলনায় বেশি। এর পরেই সিদ্ধান্ত হয়, ওই দশটি দেশ এই ট্রায়াল এখন স্থগিত রাখবে। এর পাশাপাশি অন্য ওষুধের ট্রায়াল চলবে।

ট্রাম্পের অনুরোধে ভারত ৩৫.৮২ লক্ষ ট্যাবলেট পাঠিয়েছে। সঙ্গে ৯ মেট্রিক টন ওষুধ তৈরির সামগ্রীও পাঠানো হয়েছে। শুধু আমেরিকা নয়, প্রাথমিকভাবে বিশ্বের বহু দেশে করোনা ভাইরাস মোকাবিলা করার ওষুধ হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন পৌঁছে দিয়েছে ভারত।

যদিও, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে এমন সিদ্ধান্ত সাময়িকভাবে নেওয়া হয়েছে,এমনটাই স্পষ্ট জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব