জেনেভা: রাশিয়ার তৈরি বিশ্বের প্রথম করোনা টিকা স্পুটনিক ভি (Sputnik-V) নিয়ে প্রশ্ন তুলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO), শুধু তাই নয় কোভিড-১৯ টিকার তালিকা থেকে বাদ পড়েছে স্পুটনিক-ভি।

করোনা ভ্যাকসিন তালিকায় যে নয়টি পরীক্ষামূলকভাবে অ্যাডভান্স স্টেজে আছে সেখান থেকে বাদ পড়েছে রাশিয়ার তৈরি স্পুটনিক-ভি।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশকে এগিয়ে আসতে স্বাগত জানিয়েছে হু। কোভ্যাক্স ফেসিলিটির আওতায় কোভিড ভ্যাকসিন তৈরির কাজ চলছে। সেখানে রয়েছে নয়টি ভ্যাকসিন।

এমনকি এই উদ্যোগে বিভিন্ন দেশকে ভ্যাকসিনে লগ্নি করারও আহ্বান জানানো হয়েছে যাতে সেগুলি সেই দেশ দ্রুত হাতে পায়।

মঙ্গলবার জেনেভায় সংবাদ সম্মেলনে হু মুখপাত্র তারিক জাসারেভি বলেন, রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের সঙ্গে যোগাযোগ করে টিকার বিস্তারিত তথ্য চাওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, হু নিশ্চিত হতে চায় স্পুটনিক ভি টিকা মানুষের শরীরের জন্য ক্ষতিকর হবে না। এর পরীক্ষামূলক প্রয়োগ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানাক রাশিয়া। মঙ্গলবার, প্রথম দেশ হিসেবে করোনার ভ্যাকসিন তৈরির দাবি করেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

তিনি বলেন, বিশ্বে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাসের সংক্রমণের বিরুদ্ধে একটি টিকা আনা হলো। প্রেসিডেন্ট পুতিন আরও জানান, তাঁর এক মেয়ের দেহে এই টিকা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর পরেই বিশ্বজুড়ে শোরগোল পড়ে। বিভিন্ন দেশ ও হু টিকা নিয়ে সন্দেহ জানান।

অভিযোগ, তাজ়াহুড়ো করে টিকা বাজারজাত করার জন্য মরিয়া রাশিয়া। তাদের তৈরি স্পুটনিক ভি টিকা এখনও পূর্ণাঙ্গ পরীক্ষা সম্পন্ন করেনি।

বলা হয়েছে, এর পরিমাণ এক বিলিয়ন অর্থাৎ ১০০ কোটি ডোজ। রাশিয়ায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তত্ত্বাবধানে করোনাভাইরাসের টিকা স্পুটনিক ভি তৈরি করছে গ্যামেলিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব এপিডেমোলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি।

রাশিয়ার তৈরি বিশ্বের প্রথম করোনা টিকা স্পুটনিক ভি কতটা কার্যকর তার নিয়ে বিভিন্ন দেশ সন্দিহান। অভিযোগ, তাড়াহুড়ো করেই বাজারজাত করার লক্ষ্যে টিকা বের করেছে রুশ সরকার। এই বিতর্কের জবাবে অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে জানানো হয়েছে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও