স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বৃহস্পতিবার মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিলেন ভাটপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিং৷ দিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নিলেন তিনি৷ লোকসভা ভোটের প্রাক্কালে অর্জুনের বিজেপিতে যোগ যেমন তৃণমূলের চিন্তা দ্বিগুন বাড়ালো, পাশাপাশি উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুর কেন্দ্রটিও হাতছাড়া হতে পারে তৃণমূলের বলেই মত রাজনৈতিক মহলের৷

যদিও অর্জুনের বিজেপিতে যোগ নিয়ে ‘কুছ পরয়া নেহি’ মনোভাব বজায় রাখলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মমতার কথায়, ‘‘দু’একজনের টিকিটের লোভ ছিল, কিন্তু দেওয়া যায়নি৷ তাই কে কোন দলে গেল তা নিয়ে চিন্তিত নই৷’’ বুধবার কালীঘাটে মমতার বাড়িতে সাংবাদিক বৈঠকেও তিনি জানান, যারা এখন লোভে পড়ে বিজেপিতে ঝুঁকছে তারা পরে বুধতে পারবে যে ওটা ধাপ্পাবাজদের দল৷

বিজেপির মুকুল রায় প্রথম থেকেই বলে আসছিলেন, লোকসভার আগে এক এক করে তৃণমূলের উইকেট পড়বে৷ তবে এর আগে যে কয়েকজন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যো দিয়েছেন তারা তেমনভাবে দলে প্রাধান্য পেত না৷ কিন্তু ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিং দলের ডাকাবুকো নেতা হিসেবেই পরিচিত৷ উত্তর ২৪ পরগনায় অর্জুনের প্রভাবও অনেকটা৷ সেদিক থেকে দেখতে গেলে বারাকপুর কেন্দ্রটিতে এবার হাড্ডা হাড্ডি লড়াই হবে বলেই মত বিশেষজ্ঞদের৷ পাশাপাশি ওই কেন্দ্রে অর্জুনের লবি কাজ করে সর্বত্র৷

লোকসভা ভোটের নির্ঘণ্ট প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই বারাকপুর কেন্দ্রটি নিয়ে লড়াই শুরু হয়ে গিয়েছিল৷ ওই কেন্দ্রটি থেকে তৃণমূলের টিকিটে লড়তে চেয়েছিলেন অর্জুন সিং৷ অর্জুনের দাবি, দীনেশ ত্রিবেদী বহিরাগত৷ ওই কেন্দ্রে তাঁর তেমন প্রভাবও খাটে না৷ তাই ওই কেন্দ্রে ভোটে লড়ার একমাত্র দাবিদার তিনি৷ কিন্তু তৃণমূল সুপ্রিমো তা মানতে নারাজ৷ তিনি দীনশ ত্রিবেদীকেই টিকিট দেবে বলে মনস্থির করে ফেলেছেন৷ এদিকে নাছোরবান্দা অর্জুন৷ টিকিট না পেলে তিনি বিজেপিতে যোগ দেবেন৷

বহু বৈঠক, ফোনাফুনি করেও শেষরক্ষা হল না৷ অবশেষে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন অর্জুন৷ তবে বারাকপুর কেন্দ্রে থেকে লোকসভার লটিকিটের বদলে মমতা অর্জুনকে মন্ত্রীত্বও দিতে রাজি হয়েছিলেন৷ ১২ মার্চ কালীঘাটে মমতার বাড়িতে কোর কমিটির বৈঠকেও হাজির ছিলেন অর্জুন৷ তখনও মমতার সঙ্গে কথা হয় তাঁর৷ কিন্তু কোনও কিছুর বিনিময়ে অর্জুনকে আটকাটে ব্যর্থ হলেন তৃণমূল নেত্রী৷