চন্ডীগড়: ডেরা সচ্চা সওদা প্রধান ধর্ষক রাম রহিম সিং-এর পাশাপাশি তার দত্তক কন্যা হানিপ্রীতের দিকেও আঙুল উঠেছিল৷ রামরহিমের ডান হাত এই হানিপ্রীতের সময়ও যে আসন্ন তা বোধ হয় টের পেয়েই গা ঢাকা দেয় সে৷ কিন্তু এবার লুকআউট নোটিশ জারি করা করা হল তার নামে৷ রামরহিমের সাজা ঘোষণা হওয়ার পর তার পালানোর পরিকল্পনা পেছনে হানিপ্রীতের ভূমিকা ছিল অন্যতম, এমনটাই জানা গিয়েছে৷

আরও পড়ুন: স্ত্রী হানিপ্রীতের সঙ্গে ‘বাবা’র যৌন সম্পর্ক দেখে ফেলেছিলেন স্বামী

‘বাবা’র পালিতা-কন্যা বলে পরিচিত হানিপ্রীত সিং-এর সঙ্গে যে তার যে সম্পর্ক ছিল, তা কিন্তু মোটেই বাবা-মেয়ের সম্পর্ক নয়। বরং হানিপ্রীতের সঙ্গে ‘বাবার’র যৌন সম্পর্কের কথাই শোনা গিয়েছে। আর কেউ নয়, অভিযোগ সামনে এনেছেন খোদ হানিপ্রীতের স্বামী। বিশ্বাস গুপ্তা নামে ওই ব্যক্তি যা বলেছেন, তা শুনলে সত্যিই চোখ কপালে উঠে যাবে।

পালিতা কন্যা হানিপ্রীত:

হানিপ্রীতের আসল নাম প্রিয়াঙ্কা। বিশ্বাস গুপ্তার সঙ্গে বিয়ের পর দেরা প্রধান রাম রহিম তার নাম রাখে হানিপ্রীত। ১৯৯৯ তে তাদের বিয়ে হয়।

 

আরও পড়ুন: জেলেও তার ‘সঙ্গিনী’ মেয়েকে চাই, আজব বায়ানাক্কা রাম রহিমের

কবে দত্তক নিল ‘বাবা’?

দেরা সাচ্চা সওদার সদস্যরা দাবি করেন, ২০০৯ সালে শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে ‘বাবা’র কাছে অভিযোগ করেন। হানিপ্রীতের দাবি ছিল, তাঁর কাছে পণ চাওয়া হচ্ছে। একথা শোনার পরেই বাবা তাঁকে দত্তক নেয় ওই ২০০৯ সালেই। আর বিশ্বাস হয়ে যান ‘বাবা’র জামাই। আর তাতে কি রাম রহিমের ব্যবসাতেও বিশেষ লাভ হয় বলে শোনা যায়।