স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: মাও হামলায় নিহত সি আই এফ জওয়ান দীনাঙ্কর মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুর ঘটনায় শুক্রবারই বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন মৃতের স্ত্রী মিতা মুখোপাধ্যায়৷ আর তারপরই একে একে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে সেনা জওয়ানদের পরিবার৷ শুক্রবার দুপুরে বর্ধমানের তিন নম্বর ইছলাবাদের ঘোষপাড়ার মুখোপাধ্যায় বাড়িতে নিহত দীনাঙ্কর মুখোপাধ্যায়ের দেহ আসার পর মিতাদেবী জানিয়েছিলেন, একটা ছোট জায়গার সমস্যা মাও সমস্যা। সরকার এত কিছু পারে। স্বাভাবিক ভাবেও এই সমস্যারও সমাধান করতে পারে। কিন্তু সমাধান না করে এই সমস্যাকে জিইয়ে রাখা হয়েছে।

তবে তিনি শুধু এই কথা বলে থেমে যায়নি৷ মিতাদেবী জানিয়েছেন, যেভাবে তাঁর স্বামীর মৃত্যু হয়েছে তারপর আর তিনি তাঁর ছেলেকে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে চান না। বস্তুত, মাও হামলায় নিজের দেশেই সেনা জওয়ানদের এভাবে বেঘোরে মৃত্যুর ঘটনায় ক্রমশই সরব হচ্ছেন সেনা পরিবারের সদস্যরা।

 

পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়ার দাদা পার্থ ধারা বর্তমানে দার্জিলিং-এ ইন্দো তিব্বত বর্ডার ফোর্সে কর্মরত রয়েছেন। শুক্রবার দীনাঙ্করবাবুর মৃতদেহ বর্ধমানের বাড়িতে আসার পর তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন শম্পা ধারাও। দীনাঙ্করবাবুর কফিনের ওপর মালা দিতে গিয়ে তাঁর চোখ জলে ভেসে গিয়েছিল।

শনিবার তিনি জানিয়েছেন, মাওদের সঙ্গে বিজেপির একটা গোপন আঁতাত তৈরি হয়েছে। তাই এই সমস্যাকে জিইয়ে রাখা হয়ে চলেছে। শম্পা ধারা জানিয়েছেন, বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মাওবাদী সমস্যাকে দূর করে দিয়েছেন। গোটা রাজ্যে আর মাওবাদীদের দৌরাত্ম্য নেই। সেখানে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে এত ক্ষমতা থাকলেও কেন তাঁরা উদ্যোগী হচ্ছেন না? উল্টে যে সমস্ত রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় রয়েছে সেই সমস্ত রাজ্যেই মাওবাদী কার্যকলাপ রয়েছে। বিজেপির সঙ্গে মাওবাদীদের গোপন আঁতাত রয়েছে বলেও তিনি এদিন অভিযোগ করেছেন।

একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, দেশের সেনাবাহিনী দেশের মানুষকে সুরক্ষা দিয়ে চলেছে৷ দেশবাসীর বিপদে সেনাবাহিনী সব সময় ঝাঁপিয়ে পড়ে। আর সেই সেনাবাহিনীর জওয়ানরা দেশের মধ্যেই মাও হামলায় প্রাণ হারাচ্ছেন। কেন সেনাবাহিনীর জওয়ানদের নিরাপত্তার বিষয়টি দেখা হবে না সেই নিয়েও এদিন প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। এই ব্যাপারে কেন্দ্র সরকারের কাছেও সেনা জওয়ানদের নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখার আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে, শনিবার সকালে মৃত জওয়ানের পরিবারকে সান্ত্বনা দিতে মুখোপাধ্যায় বাড়িতে আসেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। এদিন তিনি গোটা পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস ছাড়াও পরিবারের জন্য কি করা যায় সেই ব্যাপারে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে জানাবেন বলে জানিয়েছেন। মাও হামলায় জওয়ানদের মৃত্যু সম্পর্কে তাঁকে এদিন প্রশ্ন করা হলে তিনিও অভিযোগ করে জানিয়েছেন, মাও সমস্যা মেটানোর জন্য কেন্দ্র সরকারকেই আরও উদ্যোগ নিতে হবে। কারণ এই সমস্যা কেন্দ্রের সমস্যা৷ পাশাপাশি তিনি আরও জানিয়েছেন, কেন্দ্র সরকার ইচ্ছা করলেই এই সমস্যা সমাধান করতে পারেন। তাই তাদেরই উদ্যোগী হতে হবে। এক্ষেত্রে রাজ্য সরকারের কোনও ভূমিকা নেই৷